বাংলাদেশে ৭৬ দলের আবেদন নাকচ ইসির

বাংলাদেশে ৭৬ দলের আবেদন নাকচ ইসির

বেঙ্গলটুডে প্রতিনিধি, ঢাকাঃ নিবিন্ধনের জন্য নির্বাচন কমিশনে (ইসি) ৭৬টি নতুন দলের সকলের আবেদন নাকচ করে দেয়া হয়েছে। নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা ৭৬টি দলের মধ্যে ২ টি রাজনৈতিক দল প্রাথমিক বাছাইয়ে যোগ্য হলেও চূড়ান্ত বিচারে অযোগ্য প্রমাণিত হয়েছে। দল ২ টির মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম তদন্তে নিবন্ধনের শর্ত পূরণ না হওয়ায়, তাদের নিবন্ধনের আবেদন নাকচ করা হয়। ইসি সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদও দল দুটির নিবন্ধন আবেদন নাকচ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জানা গিয়েছে, ইসিতে আবেদন করা দল গুলোর মধ্যে বাংলাদেশ কংগ্রেস ও গণআজাদী লীগের আবেদন আমলে নিয়ে মাঠপর্যায়ে খোঁজ নেয় ইসি। ইসি তার নিজস্ব কর্মকর্তাদের দিয়ে দল ২ টির মাঠ পর্যায়ের অফিস ও কমিটি সহ যাবতীয় কার্যক্রম তদন্ত করে। নিবন্ধনের শর্ত অনুযায়ী মাঠপর্যায়ে যে সংখ্যক অফিস থাকার কথা, তদন্ত কালে দলটির সেই সংখ্যক অফিস খুঁজে পাননি ইসির কর্মকর্তারা। মাঠ প্রশাসন থেকে নেতিবাচক প্রতিবেদন পাওয়ার পর কমিশন দল দুটির নিবন্ধন না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সূত্র জানায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কেএম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন বর্তমান ইসি গত অক্টোবরে নতুন দলের নিবন্ধনের জন্য আবেদন চেয়ে গণবিজ্ঞপ্তি দেয়।

এতে সাড়া দিয়ে নিবন্ধন পেতে ৭৬টি দল আবেদন করে। এর মধ্যে প্রাথমিক তথ্য যাচাই-বাছাইয়ের পর প্রথম দফায় ১৯টি আবেদন বাতিল করা হয়। এরপর বাকি দলগুলোর কাছে আরও তথ্য চেয়ে চিঠি দেয় ইসি। এতে সাড়া না দেওয়ায় দ্বিতীয় দফায় আরও আটটি দলের আবেদন নাকচ করে ইসি। পরে ৪৯টি দলের তথ্য যাচাই করে মাত্র দুটি দল প্রাথমিক ভাবে যোগ্য বলে বিবেচিত হয়। এরপর দল দুটির মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম তদন্ত করে ইসি। কিন্তু আবেদন পত্রে তাদের দেওয়া তথ্যের সঙ্গে বাস্তবতার মিল না পেয়ে দল দুটির নিবন্ধন প্রস্তাব নাকচ করা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, “আমরা আবেদিত ৭৬টি দলের মধ্যে প্রাথমিকভাবে যোগ্য মনে করে, ২ টি দলের মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম তদন্ত করিয়েছি। তদন্ত প্রতিবেদন আমাদের হাতে এসেছে। তাতে দেখা গেছে, নিবন্ধনের জন্য যেসব শর্ত পূরণ করার কথা রয়েছে, দল দুটির ক্ষেত্রে তা হয়নি। বিষয়টি আমরা কমিশনে তুলেছিলাম। কমিশন দল দুটিকে নিবন্ধন না দিতে নির্দেশনা দিয়েছে”।

২০০৮ সালে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন ব্যবস্থা চালুর পর ৩৮টি দল নিবন্ধিত হয়। এরপর নবম সংসদে ২ টি এবং দশম সংসদে দুটি দল নিবন্ধন পায়। এছাড়া, শর্ত পূরণ না হওয়ায় একটি দলের নিবন্ধন বাতিল ও আদালতের আদেশে আরেকটি দলের নিবন্ধন স্থগিত রয়েছে। এছাড়া, বর্তমান কমিশন সম্প্রতি কাজী ফারুকের নেতৃত্বাধীন ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলনের নিবন্ধন বাতিল করেছে। সব মিলিয়ে এখন বাংলাদেশে ৩৯টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল রয়েছে, যারা নিজস্ব প্রতীক নিয়ে দলীয়ভাবে নির্বাচন করতে পারে।

You May Share This
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *