কলকাতায় শুরু হল দুদিনব্যাপী বিশ্ববঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলন

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গল টুডে:

১৬ ই জানুয়ারি থেকে কলকাতায় শুরু হল দুদিনব্যাপী বিশ্ববঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলন। মূলত এদিন উক্ত অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায়। এছাড়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্ব স্ত্রীক লক্ষ্মী মিত্তল, মুকেশ অম্বানি সহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্থানের বহু শিল্পপতিরা। এছাড়া এই সম্মেলনে মোট ৮টি সহযোগী দেশ রয়েছে। সহযোগী দেশগুলির মধ্যে রয়েছে জাপান, জার্মানি, ইতালি, ব্রিটেন, ফ্রান্স, পোলান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া এবং চেক প্রজাতন্ত্র। এমনকি বাণিজ্য সম্মেলনে অংশ নিয়েছে ৩০টি দেশ।

উক্ত অনুষ্ঠানে সম্মেলনের মঞ্চে মুকেশ অম্বানি, লক্ষ্মী মিত্তলকে অভ্যর্থনা জানান রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মুখোপাধ্যায়। পাশাপাশি লক্ষ্মী-পত্নী ঊষা মিত্তলকেও আজকের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্যে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। সম্মেলনে এসে মুকেশ অম্বানির আশ্বাস ওয়েস্ট বেঙ্গলকে বেস্ট বেঙ্গল করতে তিনি অঙ্গীকারবদ্ধ। এমনকি তাঁর আশ্বাস এই বছর ডিসেম্বরের মধ্যে প্রতিটি গ্রামে পৌঁছে যাবে জিওর পরিষেবা।

অপরদিকে বাংলার সরকারের প্রশংসা করে কন্যাশ্রী প্রকল্পকে অভিবাদন জানিয়েছেন অম্বানি। নারী শক্তির বিকাশেও পশ্চিমবঙ্গের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেন মুকেশ অম্বানি। দুবছরে মোট ১৫ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ করেছেন রিলায়েন্স। আরও ৫ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

এদিন মঞ্চে কথা বলতে এসে লক্ষ্মী মিত্তল বলেন, এখানকার একটি অতিসাধারন হিন্দি মাধ্যম স্কুল থেকে তার পথচলা শুরু হয়। তারপর তিনি সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে স্নাতক করেন এবং কলেজ জীবনের শুরুতে কলেজের ফাদার তাঁকে ডেকে বলেছিলেন তাঁর ইংরাজি ভাল নয়। তাঁকে অনেক উন্নতি করতে হবে এই কলেজের মানের সঙ্গে মানিয়ে চলতে। তবে তিনি শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করে গেছেন, দারুন রেজাল্ট নিয়ে কলেজ পাশ করেন লক্ষ্মী মিত্তল। তারপর তিনি এই শহর ছেড়েছিলেন এক বুক স্বপ্ন নিয়ে। তাই বাংলার উন্নয়ন, সাফল্য তাঁকে সবসময়ই আলাদা ভাবে ভাবায়। তিনি এখানে ফিরতে চান, এখানকার জন্যে কিছু করতে চান। বিশ্বমানের কিছু বাংলার জন্যে করাই তাঁর লক্ষ্য। এখানকার সাহিত্যিক, লেখক, গবেষণা, বিজ্ঞানীদের ভূয়সী প্রশংসা করেন মিত্তল। এমনকি বিনিয়োগের জন্যে সঠিক পরিস্থিতি কী সেটা তিনি খুব ভালভাবেই বোঝেন, তাই তিনি স্বাস্থ্য ও প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে উন্নতির জন্যে তৎপর।

সম্পর্কিত সংবাদ