ডিজিটাল হতে প্রযুক্তিকে সাথে নিয়ে এগোচ্ছে হাওড়া পুরসভা

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

রাজীব মুখার্জী, হাওড়াঃ গত ১০ই ডিসেম্বর ২০১৮ তেই মেয়াদ শেষ হয়েছে। শেষ মিটিংয়ের পড়ে গত সোমবারে কর্পোরেশন ছাড়েন মেয়র সহ সমস্ত পুরসভার পৌর প্রতিনিধিরা। পুরসভা সূত্রেও এখনও জানা যায়নি যে সে দিনের পর থেকে মেয়র পারিষদ ও পৌর প্রতিনিধিদের ভূমিকা কী হবে, তা এখনও কারোর কাছেই স্পষ্ট নয়। আপাতত তারা নিজেদের ওয়ার্ডের সংগঠনের কাজেই মনোনিবেশ করেছেন। মেয়াদ পেরোনোর পড়ে বাসিন্দাদের নিত্যদিনের পুরসভার প্রয়োজনীয় কাজ কিভাবেই হবে। সেই নিয়ে আপাতত যা সংশয় ছিল, কিভাবে মানুষ পরিষেবা পাবেন সেই বিষয় নিয়ে আশ্বাস বাণী পাওয়া গেলো সদ্য দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রশাসক ও হাওড়া পুরসভার কমিশনার বিজিন কৃষ্ণ। তিনি জানান নতুন বোর্ড তৈরি না হওয়া পর্যন্ত ফেসবুক ও হোয়াট্সঅ্যাপের মাধ্যমে পুর পরিষেবা সংক্রান্ত বিষয়ে নাগরিকদের সমস্যার কথা জানবে হাওড়া পুরসভা।

বৃহস্পতিবার হাওড়ার পুর প্রশাসক বলেন, “আগামী ১০দিনের মধ্যে চালু করা হচ্ছে পুরসভার হোয়াট্সঅ্যাপ ও ফেসবুক পেজ। যে কেউ তাঁদের সমস্যার কথা জানালে দ্রুত সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হবে। আর যারা হোয়াটসআপ বা ফেইসবুক ব্যবহার করেন না তাঁর ক্ষেত্রে পুরসভার দফতরে গিয়েই আগের মতো অভিযোগ জানাতে পারবেন।” আগের বোর্ডের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে রাজ্য সরকারের নির্দেশে একগুচ্ছ পরিকল্পনা তৈরি করেছেন পুর প্রশাসক। তার মধ্যে অন্যতম হল হাওড়া পুরসভার তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবস্থাকে উন্নত করা। তিনি জানান, অভিযোগ গ্রহণ কেন্দ্রও তৈরি হচ্ছে এবং সেটির দায়িত্বে থাকবে পৌরসভার প্রশিক্ষিত কর্মীদের একটি দল। এখন জোর দেওয়া হবে কঠিন বর্জ্য অপসারণের উপরেও। প্রতিদিন ঠিক মতো বর্জ্য  অপসারণ হচ্ছে কি না এবং ওই দফতরের সব কর্মী ঠিক মতো কাজ করছেন কি না, তার উপরে নজরদারি করবেন পুরসভার উচ্চপদস্থ অফিসারেরা। পুর পরিষেবার কাজে ব্যবহার করতে বদলি হওয়া আধিকারিকদেরও গুরুত্বপূর্ণ পদে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে।

এদিন পুর-প্রশাসক জানান, ৬৬ টি ওয়ার্ডে পরিষেবার কাজ কোনও ভাবে যাতে ব্যাহত না হয় তা নিশ্চিত করা হবে। হাওড়া শহরের নাগরিকদের সুবিধার্থে হাওড়া শহরের বর্তমান দুই মন্ত্রী ও বিধায়কদের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলা হচ্ছে, যাতে তাঁদের এলাকার ওয়ার্ড অফিসগুলি থেকে প্রয়োজনীয় শংসাপত্র মানুষের হাতে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা যায়।

পুর প্রশাসক জানান, বরো কমিটিগুলির কাজ কীভাবে হবে তারও একটা নির্দিষ্ট রূপরেখা তৈরি হয়েছে যা কিছু দিনের মধ্যেই নোটিশ দিয়ে জানানো হবে। এদিন তিনি বলেন, “রাজ্য সরকারের নির্দেশে কঠিন বর্জ্য অপসারণ ও জল সরবরাহ অব্যাহত রাখতে সব সময় নজরদারি চলবে। এই ধরনের সব সমস্যা দূর করতে আমরা পুরসভার তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবস্থাকে উন্নত করতে চাইছি। এর জন্য নির্দিষ্ট প্রস্তাব তৈরি হয়েছে। তা রাজ্য সরকারকে পাঠানো হবে।” এরই মাঝে হাওড়া পুরবোর্ডের নির্বাচন না করে প্রশাসক বসিয়ে পুরসভা চালানোর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা শুরু করেছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো।

সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Comment