এলাকায় দোকান ভাঙচুর ও মারধর – অভিযোগের তীর সেনা জওয়ানদের দিকে

এলাকায় দোকান ভাঙচুর ও মারধর – অভিযোগের তীর সেনা জওয়ানদের দিকে

অরিন্দম রায় চৌধুরী, ব্যারাকপুরঃ

ব্যারাকপুর থেকে বারাসাত যাওয়ার পথে ঠিক চন্দনপুকুর বাজার যাওয়ার পথটি যে বেজায় সরু তা যারা ওই পথ দিয়ে যাতায়াত করেন তারা সকলেই জানেন। রাস্তার ধারে এক বিন্দু জায়েগা পাওয়া যাবে না মানুষের চলাফেরা করার মত। তার উপর বেশ কিছু দোকান তাদের পসার প্রায় রাস্তার উপর নিয়ে বসে পড়েছে। এমত অবস্থায় কেউ যদি কোন দোকান বা রাস্তার ধারে কোন গাড়ী পার্ক করে রাখে তো কথাই নেই। রাস্তা একেবারে জ্যামজটে আটকে পড়বে যাতায়াত করা অসংখ গাড়ী। গত মঙ্গলবার ঠিক এমনই ঘটনা ঘটে গেল ব্যারাকপুরের চন্দনপুকুর এলাকায়। বাধা দেওয়ায়ে জুটলো সেনাবাহিনীর মার ও ভাংচুর। ব্যারাকপুর বারাসাত রোডের চন্দনপুকুর বাজার সংলগ্ন একটি দোকানে ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠল সেনা বাহিনীর জওয়ানদের বিরুদ্ধে।

প্রসঙ্গত ১৭ই এপ্রিল মঙ্গলবার চন্দনপুকুর বাজার সংলগ্ন একটি স্টেশনারি বন্ধ দোকানের সামনে একটি গাড়ি দাঁড় করানো ছিল। অভিযোগ JH-09AB-8286 নম্বরের গাড়িটি দোকানটির সামনে রাস্তার ধারে মানুষের চলাচল করা একচিলতে সরু রাস্তা জুড়ে দাঁড়িয়েছিল। দোকান মালিক রাজীব দত্ত দোকান খুলতে আসেন। দোকানের সামনে দাড় করানো গাড়ির কাউকে দেখতে না পেয়ে যথারীতি তিনি নিজের দোকান খোলেন। এই ভাবেই কেটে যায় প্রায় ঘন্টা খানেক সময়। ততক্ষণে রাস্তা জ্যামজটে নাকাল মানুষ। প্রায় ঘন্টাখানেক পর ওই গাড়িটি নিতে আসেন এক যুবক ও এক মহিলা। তখন দোকান মালিক রাজীব দত্ত তাদের বলেন এই জায়গায় গাড়ি কেন রেখে ছিলেন? দোকানের সামনে রাস্তায় গাড়ি রাখায় সকলেরই সমস্যা হচ্ছিল। গাড়ীর মালিক সেই মহিলা বলেন, “এখানে গাড়ি রাখা বারন বোর্ড কেন লাগাননি?” অভিযোগ এর পর মহিলা রাজীব বাবুর দোকানের বাইরে রাখা একটি বোর্ড রাস্তায় ফেলে দেন। এর পর আসে পাশের অন্য দোকানদাররা ছুটে এসে ঘটনার প্রতিবাদ করায় ওই মহিলা সেই সময় ক্ষমা চেয়ে ঘটনাস্থল থেকে গাড়ী নিয়ে চলে যান।

[espro-slider id=4496]

পরে রাত ১০ টা নাগাদ ওই মহিলার গাড়ি ও সাথে 14B-114035 নম্বরেরএকটি সেনা বাহিনীর গাড়িতে ২০জন সেনা পোশাক পরা জওয়ান এসে হকি স্টিক, লাঠি দিয়ে দোকান ভাঙচুর করে। সেই সময় রাজীব দত্ত ও তার দুই দাদা জওয়ানদের আটকাতে গেলে তাদেরও মারধোর করে বলে এবং ভয় দেখানোর জন্য আগ্নেয়াস্ত্র দেখানো হয় বলে অভিযোগ। আশে পাশের দোকানদাররা ছুটে আসলে তাদেরকেও মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ। এর পর টিটাগড় থানায় খবর গেলে তাদের একটি টহলদারি গাড়ী অকুস্থলে পৌঁছানো মাত্র সেনা জওয়ানরা গাড়িতে উঠে চলে যায়। দোকান মালিক রাজীব দত্তকে গুরুতর আহত অবস্থায় বি.এন.বসু মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। তার মাথায় আঘাত লেগেছে। এই ঘটনার পরিপেক্ষিতে টিটাগড় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে গোটা বিষয়টি জানিয়ে। অভিযোগের উপর ভিত্তি করে পুলিশ তদন্ত করে দেখছে পুরো বিষয়টি।

You May Share This

Leave a Reply