​তথ্য প্রমাণের অভাবে সেনাকর্তা সহ দুই ব্যক্তি বেকসুর খালাস

​তথ্য প্রমাণের অভাবে সেনাকর্তা সহ দুই ব্যক্তি বেকসুর খালাস

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গল টুডেঃ

২রা এপ্রিল ​তথ্য প্রমাণের অভাবে দেশদ্রোহীতার অভিযোগে ধৃত এক সেনাকর্তা সহ দুই ব্যক্তিকে বেকসুর খালাস করে দিল ব্যারাকপুর আদালত।

২০১৩ সালের ১৮ ই ডিসেম্বর টিটাগড় থানার পুলিশ ব্যারাকপুর দেবপুকুরের  নিজের বাড়ির থেকে দেশদ্রোহীতার অভিযোগ গ্রেপ্তার করা হয় প্রাক্তন সুবেদার মদন মোহন পালকে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল দেশের সেনা বাহিনীর তথ্য পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থার কাছে ইন্টারনেটের মাধ্যমের পাচার করার। 

তারপর  ২০১৪ সাল থেকে সিআইডির হাতে ছিল এই মামলার তদন্তভার । তদন্তে নেমে সিআইডি মদন মোহন বাবুকে জেরা করতে গিয়ে জানতে পারে উত্তরপ্রদেশের শেখ আসিফ আলী নামে এক ব্যক্তি তাকে এই কাজে সহযোগিতা করেছিলেন । সেইমত সিআইডি খোঁজখবর নিতে শুরু করে দেয় । ২০১৫ সালে উত্তরপ্রদেশের মিরাট থেকে আসিফ আলীকে গ্রেফতার করে আনে সিআইডি। দীর্ঘদিন মমলা চলার পর ২রা এপ্রিল ব্যারাকপুর দ্বিতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা বিচারক মীর রসিদ আলি অভিযুক্ত দুজনকে তথ্য প্রমানের অভাবে বেকসুর খালাস করেন ।

সরকারি আইনজীবী সত্যব্রত দাস বলেন , তারা এই রায়ে খুশি নন তারা উচ্চ আদালতে যাবেন। অন্যদিকে অভিযুক্তদের আইনজীবী অনুপ রায় জানান , যে অভিযোগ গুলি আমার মক্কেলদের বিরুদ্ধে আনা হয়েছিল তার স্বপক্ষে সিআইডি কোনও সঠিক তথ্য দেখাতে পারেনি আদালতে । তাই আদালত বেকসুর খালাসের নির্দেশ দিলেন।

প্রসঙ্গগত ২০১৩ সালের ১৮ ই ডিসেম্বর ব্যারাকপুর দেবপুকুরে নিজের বাড়ির থেকে দেশদ্রোহীতার অভিযোগ গ্রেপ্তার করা হয় প্রাক্তন সুবেদার মদন মোহন পালকে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল দেশের সেনা বাহিনীর তথ্য পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থার কাছে ইন্টারনেট এর মাধ্যমের পাচার করার ।
২০১৫ সালে গ্রেপ্তার করা হয় আসিফ আলিকে মদন মোহন পাল কে সহযোগিতা করার অভিযোগে।মামলাটি ২০১৪ সাল থেকে সিআইডির হাতে ছিল।
এরপর এদিন মীর রসিদ আলি সহ দুজনকে বেকসুর খালাস করেন আদালত।

You May Share This
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *