কলকাতা হাইকোর্টের বিচারক ব্যক্তিগত সফরে এসে ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতাল পরিদর্শন

Spread the love
  • 16
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    16
    Shares

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

নিজের কাজে ঝাড়গ্রামে এসে কলকাতা হাই কোর্টের বিচারক পরিদর্শন করে গেলেন ঝাড়গ্রাম জেলা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের নতুন ভবন। তার সাথে পুরাতন ভবনটিও পরিদর্শন করেন। ঝাঁ চকচকে ,পরিস্কার,পরিচ্ছন্ন আবহ দেখে খুবই খুশি হন বিচারক। জেলা হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড তিনি ঘুরে দেখেন এবং আলাদাভাবে রোগীদের সাথে কথা বলে জেনে নেন হাসপাতালের চিকিৎসা পরিষেবা । ৩১শে মার্চ কলকাতা হাইকোর্টের বিচারক সৌমেন সেন এবং তার পারিবারিক কিছু বন্ধুদের নিয়ে ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতাল পরিদর্শনে আসেন। তাদের সাথে হাসপাতাল পরিদর্শনের সময় ছিলেন ঝাড়গ্রামের মহকুমা শাসক নকুল চন্দ্র মাহাতো, ঝাড়গ্রাম হাসপাতাল সুপার মলয় আদক, ঝাড়গ্রাম রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের সম্পাদক স্বামী শুভকরানন্দ মহারাজ।

প্রশাসন সূত্রে খবর, কলকাতা হাই কোর্টের বিচারক সৌমেন সেন তার পরিবার এবং পারিবারিক বন্ধু বান্ধবদের নিয়ে ঝাড়গ্রামে ব্যক্তিগত কাজে এসেছিলেন। ঝাড়গ্রাম জেলা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের কথা তিনি জানতেন। তাই এবার তিনি ঝাড়গ্রামে এসে ঝাড়গ্রাম হাসপাতালটি ঘুরে দেখার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। সেই মতো এদিন ঝাড়গ্রামের মহকুমা শাসক,ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতাল সুপারকে সাথে নিয়ে ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতেলের পুরাতন ভবন এবং সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখেন। শিশুদের জন্য বিশেষ ওয়ার্ড এসএনসিইউ ঘুরে কার্যত দারুন খুশি হয়।

এছাড়াও বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখার সাথে সাথে ব্যক্তিগত ভাবে হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের সাথে কথা বলেন। তাদের চিকিৎসায় কোন অসুবিধা হচ্ছে কিনা তাও জেনে নেন। তিনি রোগীদের সাথে কথা বলে, হাসপাতল ঘুরে খুবই সন্তুষ্ট হয়েছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কতৃপক্ষ। ঝাড়গ্রাম জেলা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের সুপার মলয় আদক বলেন, “হাই কোর্টের বিচারক সৌমেন সেন এবং কয়েক জন ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতালে এসেছিলেন। তারা হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখেন। রোগীদের সাথে কথা বলেন বিচারক। ঝাড়গ্রাম হাসপাতালের সার্বিক পরিবেশ দেখে উনি খুবই খুশি হয়েছেন।”

ঝাড়গ্রামের মহকুমা শাসক নকুল চন্দ্র মাহাতো বলেন, ” কলকাতা হাই কোর্টের বিচারক সৌমেন সেন এবং ওনার পারিবারিক বন্ধুরা ঝাড়গ্রাম এসেছিলেন। ঝাড়গ্রাম হাসপাতাল ঘুরে দেখার কথা বলেছিলেন। ওনারা এদিন হাসপাতাল ঘুরে দেখে খুবই সন্তুষ্ট হয়েছেন। রোগীদের সাথে কথাও বলেছেন।”

সম্পর্কিত সংবাদ