‘স্বাধীনতার ৭৫ বছরের আলোয় আজকের অনন্যারা’ – আন্তর্জাতিক নারী দিবসে !!

‘স্বাধীনতার ৭৫ বছরের আলোয় আজকের অনন্যারা’ – আন্তর্জাতিক নারী দিবসে !!

কলকাতা, ৭ মার্চ, ২০২২, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ৭ই মার্চ ঠিক দুপুর ২টোর সময় এক ওয়েবিনারে ‘স্বাধীনতার ৭৫ বছরের আলোয় আজকের অনন্যারা’ বিষয়ে বলতে গিয়ে জুওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার অধিকর্তা ডঃ ধৃতি ব্যানার্জী বলেন, পরিবর্তিত পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা এবং অচলাবস্থার মধ্য থেকে কঠোর প্রতিরোধের মোকাবিলা করে লক্ষ্য অর্জনে এগিয়ে যাওয়াই লক্ষ্য পূরণের একমাত্র রাস্তা । তিনি বলেন, মহিলাদের ক্ষমতা অর্জন করতে হবে, কেউ হাতে তুলে দেবে না, এবং এর জন্য কাঁচের ছাদ চার্জ করার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে । সোমবার ( ৭ মার্চ, ২০২২), প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো এবং বিড়লা ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড টেকনোলজিক্যাল মিউজিয়াম যৌথভাবে আয়োজিত এক ওয়েবিনারে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা জানান।

এই দিনের ওয়েবিনারে স্বাগত বার্তায় ভারত সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের পূর্বাঞ্চলের মহানির্দেশক শ্রী ভূপেন্দ্র কাইন্থোলা বলেন, আরও অনেক মহিলার কাঁচের ছাদ ভাঙার চেষ্টা করা উচিত।তিনি এ প্রসঙ্গে ২০২০-২১-এর নারী শক্তি পুরস্কার বিজেতাদের অভিনন্দন জানান। তিনি এও বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার অনেক সুযোগ নিয়ে এসেছে যাতে তাঁরা ডানা মেলতে পারেন । বিআইটিএম-এর অধিকর্তা শ্রী ভি এস রামচন্দ্রন গার্গী এবং মৈত্রেয়ীর সময় থেকে মহিলাদের ক্ষমতায়ন প্রসঙ্গটি উত্থাপন করে বলেন, আমাদের দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে বহু নারীর আত্মবলিদানের ইতিহাস রয়েছে, সে ঝাঁসীর রাণী লক্ষ্মীবাঈ হোন কি বঙ্গের মাতঙ্গিনী হাজরা-ই হোন। ভারত সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের কলকাতাস্থিত প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরোর অতিরিক্ত মহানির্দেশিকা শ্রীমতী জেন নামচু-ও অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ।

অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ছিলেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট কর্নেল সোফিয়া কুরেশি, বিশিষ্ট ভূতত্ত্ববিদ এবং অ্যান্টার্কটিকায় পা রাখা অন্যতম প্রথম মহিলা অভিযাত্রী শ্রীমতী সুদীপ্তা সেনগুপ্ত, দেশের প্রথম বিমানে অগ্নি নির্বাপণ কর্মী শ্রীমতী তানিয়া সান্যাল, মাউন্ট এভারেস্ট জয়ী শ্রীমতী টুসি অনিত শাহ(দাস), নেচার ইন্ডিয়া পুরস্কারপ্রাপ্ত কলকাতার বিআইটিএম-এর এডুকেশন অফিসার শ্রীমতী অদিতি ঘোষ এবং রামপুর সেনিয়া ঘরানার বিশিষ্ট সেতারবাদিকা শ্রীমতী সাহানা ব্যানার্জী । প্রসঙ্গত, এখানে বলে রাখা ভাল যে লেফটেন্যান্ট কর্নেল সোফিয়া কুরেশি কোর অফ সিগনাল অফিসার, উত্তর-পূর্বের প্রভোস্ট ইউনিটে কর্মরতা। তিনি বলেন, পরবর্তী প্রজন্মের শিশুদের জীবনে সফল হতে ১৩টি নিয়ম সবসময় মনে রাখা প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন, ছেলেমেয়েদের সাহসের সঙ্গে এবং দৃঢ়তার সঙ্গে প্রতিনিয়ত লক্ষ্য অর্জনের চেষ্টা করে যেতে হবে ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে এবং নিজের ভাগ্য নিজে গড়বার স্বপ্ন দেখতেই হবে । এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, লেফটেন্যান্ট কর্নেল সোফিয়া কুরেশি রাষ্ট্রসংঘের অংশ হিসেবে অন্যান্য দেশে গিয়েছেন প্রশিক্ষণ দান করতে । সেখানে তিনি আন্তর্জাতিক স্তরে একাধিক সম্মান লাভ করেছেন । দক্ষিণ আফ্রিকা, কম্বোডিয়া এবং বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক স্তরে রাষ্ট্রসংঘের প্রশিক্ষণ দলের হয়ে শান্তির প্রতিষ্ঠার কাজেও লিপ্ত হয়েছেন অনায়াসে। তিনি যুবাদের মনোবল বাড়ানোর জন্য অনুপ্রাণিত করতে বেশকিছু কর্মশালার-ও পরিচালনা করেছেন – বিশেষ করে, কাশ্মীর, পশ্চিমবঙ্গের জঙ্গিপ্রবণ এলাকায়, সংখ্যালঘু বালিকাদের মধ্যে। সম্প্রতি মিরান্দা এনসিসি মেয়েদেরও ভারতীয় সেনায় যোগদানের উৎসাহিত করতে কর্মশালার পরিচালনা করেন । 

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ট্রাকচারাল জিওলজির অধ্যাপিকা সুদীপ্তা সেনগুপ্ত আগের দশকে তাঁর অ্যান্টার্কটিকা অভিযানের রোমাঞ্চ নিয়ে বক্তব্য রাখেন ওয়েবিনারে । তিনি বলেন, জীবনে সাফল্য পেতে তাঁকে সাহায্য করেছে ইচ্ছাশক্তি, মানসিক জোর, শারীরিক সক্ষমতা এবং পর্বতারোহণের মতো কঠোর প্রশিক্ষণ । ওই অভিযানের পর তিনি তাঁর অভিজ্ঞতা লিপিবদ্ধ করেছেন ‘অ্যান্টার্কটিকা’ প্রবন্ধে যেটি এখনও বেস্ট সেলার ।

এদিনের এই ওয়েবিনারে উপস্থিত ছিলেন দেশে উড়ান অগ্নিনির্বাপক হিসেবে শ্রীমতী তানিয়া সান্যাল যার নাম এখন অনেকেই জানেন। তাঁর কঠোর শারীরিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি এ ক্ষেত্রে তাঁর পুরুষদের আধিপত্য ভাঙার অভিজ্ঞতার কথা অকপটে ব্যক্ত করেন ওয়েবিনারে । এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার দমকল বিভাগে যোগ দেওয়ার অভিজ্ঞতার কথাও জানান তিনি । ওই কাজের জন্য প্রতিটি ধাপ তিনি পেরিয়েছেন সাফল্যের সঙ্গে । 

এদিন উপস্থিত এভারেস্ট বিজয়িনী টুসি অনিত সাহ (দাস) তাঁর সাফল্য এবং দারিদ্র্য মোকাবিলা এবং কঠোর লড়াইয়ের কথা ব্যক্ত করেন এদিনের ওয়েবিনারে।কলকাতার দক্ষিণ দমদম এলাকায় তিনি একসময় ডিম-ও বেচেছেন তিনি। নেপালের দিক থেকে মাউন্ট কাঞ্চনজঙ্ঘা ধরে নামার সময় দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। সেকথাও তিনি জানিয়েছেন ওয়েবিনারে। তিনি কথাপ্রসঙ্গে বলেন, স্কুলে অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসে উৎসাহ দিতে হবে । তবেই মানসিক শক্তি বাড়বে । জীবনে অস্বাভাবিকতার সঙ্গে লড়াই করা যাবে ।

নেচার ইন্ডিয়া পুরস্কারপ্রাপ্ত কলকাতা বিআইটিএম-এর এডুকেশন অফিসার শ্রীমতী অদিতি ঘোষ ছাত্রছাত্রীদের অজানাকে জানতে বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশুনা করতে উৎসাহ দেন এবং বিশ্ব জয় করার জন্য যথেষ্ট সাহস সঞ্চয় করার কথা বলেন ।

রামপুর সেনিয়া ঘরানার নামী সেতারবাদিকা শ্রীমতী সাহানা ব্যানার্জীও ছাত্রছাত্রীদের স্কুল স্তর থেকে যে কোন ধরনের পারফর্মিং আর্টস বেছে নেওয়ার কথা বলেন । তিনি বলেন, যে এতে শুধু মনঃসংযোগ বাড়বে তাই নয়, কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে, আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করবে এবং শিল্পের জন্য ভালোবাসা তৈরি হবে । এদিনের ওয়েবনিয়ার ভারতের স্বাধিনতার ৭৫তম বছরে স্বাধিনতার অমৃত উৎসবে বছরের শুরুতেই সকলের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিল, যে আর ভারতবর্ষ সেই আগেরমত নেই। বর্তমানে ভারত বর্ষ দুনিয়ার সাথে রীতিমত পাল্লা দিয়ে তার নিজের মতই এগিয়ে যাচ্ছে উন্নতির দিকে আর দেশের সেই উন্নতি কল্পে একযোগে নারি-পুরুষ কাধে কাধ মিলিয়ে দায়ীত্ব পালন করে চলেছে। এদিনের এই ওয়েবিনারে যোগ দেন স্কুলের একাধিক ছাত্রছাত্রী এবং শহরের বেশ কিছু সাংবাদিক-ও।

You May Share This

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.