বাংলাদেশে তাবলীগ-জামাতের সংঘর্ষে নিহত এক: আহত দু’শতাধিক

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

মিজান রহমান, ঢাকাঃ বাংলাদেশে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ১লা ডিসেম্বর সকালে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের সময় এক বৃদ্ধ মারা গেছেন বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ১লা ডিসেম্বর শনিবার দুপুরে টঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, “এদিন সকালে বাংলাদেশের আশকোনা এলাকায় তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের সংঘর্ষের সময় বেশ কয়েকজন আহত হয়। এর মধ্যে ইসমাইল হোসেন (৭০) নামে এক ব্যক্তি মারা যান। তাঁর বাড়ি মুন্সীগঞ্জে।

পাঁচ দিনের জোর ইজতেমা অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে ১লা ডিসেম্বর শনিবার সকাল থেকে এই সংঘর্ষ শুরু হয়। জোহরের নামাজের জন্য কিছু সময়ের বিরতির পর আবারও সড়কে অবস্থান নেয় উভয়পক্ষের অনুসারীরা। তবে পরিস্থিতি অনেকটাই স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। সকাল থেকে এই উত্তেজনার মধ্যে বিমানবন্দর সড়কের টঙ্গীমুখী অংশে যানবাহন চলাচল মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হয়। মহাখালীর পর থেকে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া বিমানবন্দর সড়কে দুই পাশের রাস্তায় যানবাহন চলাচল ব্যাহত হয়ে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, এদিন সকাল থেকেই বিশ্ব ইজতেমা মাঠে মাওলানা জুবায়ের সমর্থিত তাবলীগ-জামাতের মুসল্লিরা অবস্থান করছিলেন। ফজরের নামাজের আগে থেকে সাদপন্থী মুসল্লিরা লাঠি, ছাতা ও ব্যাগ নিয়ে ইজতেমা মাঠের অন্যদিক দিয়ে প্রবেশ করতে শুরু করে। ফজরের নামাজের পর থেকে সাদপন্থী মুসল্লিরা জুবায়েরপন্থী মুসল্লিদের ইজতেমা মাঠ থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করে। এ নিয়ে দুইপক্ষের মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় আহতদের আশপাশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৩০শে নভেম্বর শুক্রবার থেকে পাঁচ দিনব্যাপী জোড় ইজতেমার ঘোষণা দিলে মাওলানা জোবায়েরপন্থীরা এর বিরোধিতা করেন এবং জোড় ইজতেমা প্রতিহতের ঘোষণা দেন। এর আগেই মাওলানা জোবায়ের আহমেদের সমর্থকরা ইজতেমা ময়দানে অবস্থান নেন। সকালে মাওলানা সাদপন্থীরা ইজতেমা ময়দানে গেলে ময়দানের প্রতিটি গেটে তালাবদ্ধ দেখতে পেয়ে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। একপর্যায়ে সাদপন্থীরা ময়দানে ঢোকার চেষ্টা করলে উভয়পক্ষের মুসল্লিদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে।

সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Comment