দিশেহারা অবরোধের বিক্ষিপ্ত প্রভাব কিছু স্থানে

  অরিন্দম রায় চৌধুরী ও রাজীব মুখার্জি, বার‍্যাকপুরঃ ১০ সেপ্টেম্বরে জাতীয় কংগ্রেসের ডাকা পেট্রল ও ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে ডাকা ভারত বন্ধকে গত ৭ই সেপ্টেম্বর রাজ্যের বামপন্থী ও বাম সহযোগী দলগুলি সমর্থন জানায় ও পাশাপাশি পশ্চিমবাংলার জনগণের কাছেও দেশব্যাপী হরতালে শামিল হবার আহ্বান জানানো হয়। গত ৭ই সেপ্টেম্বর এক প্রেস বিবৃতিতে বামেদের পক্ষে এই আবেদন জানান বিমান বসুও দলের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র। ওই বিবৃতিতে বিমান বসু বলেন – “চার বছরের কিছু সময় আগে কেন্দ্রে মোদী সরকার গড়ে ওঠার সময় আচ্ছে দিনের কথা বলে যা যা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তার কোনোটাই কার্যকরী…

বাগদা থানার অন্তর্গত নঞ্চেপতায় ১০ বছরের বালকের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ডাকাতি

  জয় চক্রবর্তী, বাগদাঃ ঘটনাটি ঘটে ৯ই সেপ্টেম্বর, রাত ২ টো নাগাদ বাগদা থানার নঞ্চেপতা ৷ সূত্রে খবর অনুযায়ী, সন্ন্যাসী ঘোষ পেশায় দুধ বিক্রেতার বাড়িতে রাত ২ টো নাগাদ ৫ জনের দুষ্কৃতী দল মুখে কাপড় বেঁধে এসে প্রথমে দরজা খুলতে বলে এবং ভয় দেখায়। দরজা খুলতেই ঘরের আলমারির চাবি চায় ওরা। দিতে অস্বীকার করলে সন্ন্যাসী বাবুর নাতি সৈকত ঘোষের (১০) মাথায় বন্দুক ঠেকায়৷ চাবি দিয়ে দুটি আলমারি খুলে নগদ প্রায় ৬০ হাজার টাকা ও প্রায় ১০ ভরী গয়না নিয়ে চম্পট দেয় বলে দাবী৷ মেয়ে মুনমুন ঘোষ স্বামী মারা যাওয়ায় ছেলে…

ত্রিকোণ প্রেমের জেরে স্ত্রীর খোঁজ করতে গিয়ে প্রেমিকের হাতে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আক্রান্ত স্বামী

অমিয় দে, ক্যানিংঃ স্ত্রী বাড়িতে আসছেনা দেখে প্রেমিকের কাছে খোঁজ করতে গিয়ে আক্রান্ত হলেন স্বামী। আহত ব্যক্তির নাম পরীক্ষিত হালদার। অভিযোগ, তাঁর মাথায় ধারালো অস্ত্রের কোপ মেরেছে স্ত্রীর প্রেমিক বলাই মণ্ডল। স্থানীয়দের তৎপরতায় গুরুতর অবস্থায় তাঁকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। অভিযুক্ত বলাই মণ্ডলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিং থানার নিকারিঘাটা এলাকায়। এলাকাবাসীদের থেকে জানা গিয়েছে , দীর্ঘদিন ধরে বলাই মণ্ডলের সঙ্গে প্রেমে বদ্ধ ছিলেন পরীক্ষিত বাবুর স্ত্রী। কিছুদিন আগেও এনিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বচসা হয়। তারপরেই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায় পরীক্ষিত বাবুর স্ত্রী। এর পরেই…

সোনারপুরের মাথায় আরও একটি পালক সংযোজন হতে চলেছে নরেন্দ্রপুর থানা

অমিয় দে, সোনারপুরঃ সোনারপুরের মাথায় আরও একটি পালক সংযোজন হতে চলেছে নরেন্দ্রপুর থানা। সোনারপুর বাসীদের বহু দিনের ইচ্ছে ছিল যদি আরও একটি থানা হত এই এলাকায়, আর সেই অপেক্ষার অবসান ঘটতে চলেছে। সাধারণ মানুষকে উপহার দিতে চলেছেন বিধায়ক ফীরদৌসি বেগম। এতদিন সোনারপুর থানার আওতায় ছিল ৩৫ টি ওয়ার্ড ও ১১ টি গ্রাম পঞ্চায়েত, সোনারপুর উত্তর এবং সোনারপুর দক্ষিণ। বিশাল এলাকা হওয়ায় সোনারপুর থানা থেকে বিভিন্ন জায়গায় ঠিক সময় মতন পৌঁছানো সম্ভব হতো না, অর্থাৎ সোনারপুর থানাকে একাই সামলাতে হতো পুরোটাই। ১২০.৬৩ কিলোমিটার জুড়ে এই থানার আওতায় ছিল এতোদিন। জনসংখ্যার নিরিখে প্রায়…