ভূয়ো জলের কারখানা বন্ধ হল ডিস্ট্রিক্ট এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের সাহায্যে, আটক কয়েকশো জলের জ্বার, গ্রেফতার মালিক

  জয় চক্রবর্তী, গাইঘাটাঃ মিনারেল ওয়াটারের নামে ভূয়ো জলের কারখানার তৈড়ি করে রমরমিয়ে চলছিল ব্যবসা। গোপনসূত্রে খবর পেয়ে ১৮ই জুলাই, বুধবার ডিস্ট্রিক্ট এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ (DEB)-এর আধিকারিক তপন কুমার বসাকের নেত্রীত্বে ৬ সদস্যর একটি দল দুপুরে হানা দেয়। উত্তর ২৪ পরগনার গাইঘাটার রামপুর এলাকায় সিল করা হলো “পার্থিব” নামে ভূয়ো জলের কারখানা। বাজেয়াপ্ত কয়েকশো ২০ লিটার জলের জার, ক্যাপ, লেবেল ও ম্যাসিন পত্র ও সেই ভুয়ো জল সরবরাহের জন্য ব্যবহার করা একটি গাড়ি। ডিস্ট্রিক এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ (DEB)-এর সূত্রের খবর অনুযায়ী জানা গিয়েছে, রামপ্রসাদ সরকার ও বাপী দাস নামে এই দুই ব্যক্তি…

অপহরণ না প্রেম প্রনয়ের ঘটনা? চলছে তদন্ত!

  শান্তনু বিশ্বাস, দেগঙ্গাঃ উত্তর ২৪ পরগনার দেগঙ্গা থানার দেবালয়ের নন্দীপাড়া থেকে এক গৃহবধূ কে অপহরণের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। পুলিশের উপর আস্থা হারিয়ে হিউম্যান রাইটস্ এর দ্বারস্থ পরিবার। পরিবার সুত্রে জানা যায় যে, বছর ৬য়েক আগে দেগঙ্গার আবুতাহের মণ্ডলের মেয়ে পারভিনা বিবির বিয়ে হয় পার্শবর্তী মাটিয়া থানার কেঁদুয়া গ্রামের বাকিবিল্লা নামের এক যুবকের সঙ্গে। ৬ বছরের সংসারে তাদের একটি ছোট্ট সন্তান ও আছে। গত কয়েক মাস আগে পারভিনা বিবি তার বাপের বাড়িতে ঘুরতে আসে। ঘুরতে আসার পর নন্দীপাড়ার বাসিন্দা খাদিজা বিবির সাহায্য, মাটিয়ার কেঁদুয়া গ্রামের আনারুল মণ্ডল ওরফে…

৪ বাংলাদেশি কিশোর ফিরলো তাদের পরিবারের কাছে

পল মৈত্র, দক্ষিন দিনাজপুরঃ অবৈধ ভাবে ভারতে আসা চার বাংলাদেশি কিশোর কে প্রায় দেড় বছর পর তাদের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হল। বুধবার দুই দেশের আধিকারিকদের উপস্থিতিতে আন্তর্জাতিক হিলি চেকপোস্টে ওই মহম্মদ শাহ জামাল(১৮), রসিদ ইসলাম(১৩), মহম্মদ সাগর হোসেন(১২) ও ইমন ইসলাম(১৪) নামে ৪ কিশোর কে তাদের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়, দীর্ঘদিন পর সন্তান কে কাছে পেয়ে খুশি তাদের পরিবারের লোকেরা। চাইল্ড লাইন সূত্রে জানা গেছে, বছর দেড়েক আগে বাংলাদেশ থেকে কাজের সন্ধানে ভারতে আসে ওই চারজন কিশোর। তাদের বাড়ি বাংলাদেশের নওগাঁ, দিনাজপুর ও খুলনা এলাকায়। হিলি সিমান্ত দিয়ে অবৈধ…

সাবধান!! এবার ব্যারাকপুরে জনস্থলে ধূমপান করলে জরিমানা

  অরিন্দম রায় চৌধুরী, ব্যারাকপুরঃ জেনে রাখা ভাল যে গ্যাটস-২(GATS-2)-এর তথ্য অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে প্রাপ্ত বয়স্কদের মধ্যে ৩৩.৫% যা মোট জনসংখ্যার প্রায় ২.৩ কোটি, কোনও না কোনও উপায়ে তামাক ব্যবহার করে এবং ১.৫ লক্ষ লোক প্রতিবছর এর কারণে মারা যায়। দেখা গেছে যে ৪২ টিরও বেশি শিশু প্রতিদিন পশ্চিমবঙ্গে তামাক খাওয়া শুরু করে। অপরদিকে ২০০৩ সালে সিগারেট এবং অন্যান্য তামাকজাত দ্রব্য আইন (COTPA 2003) জনস্থানে ধূমপান, প্রত্যক্ষ/পরোক্ষ বিজ্ঞাপন এবং প্রচার, ১৮ বছরের কম বয়সীদের কাছে/দ্বারা বিক্রয়, স্কুলের ১০০ গজের মধ্যে বিক্রয় এবং বিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ ছাড়া তামাকজাত পণ্যের বিক্রয় নিষিদ্ধ করে। এবার…