আমার জীবনকথা- ভাগ-২

  পিতৃ-মাতৃকুলের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি রোটারিয়ান স্বপন কুমার মুখোপাধ্যায় আমার কথা পরে হবে। আমার পিতামহের সন্তান-সন্ততি মোট দশজন। পাঁচ পুত্র ও পাঁচ কন্যা। পাঁচ পুত্র যথাক্রমে- সতীশচন্দ্র, অক্ষয়কুমার, অমরেন্দ্রনাথ, রবীন্দ্রনাথ ও সৌরেন্দ্রনাথ। আমার পাঁচ পিসিদের নাম অমলা, শোভনা, কচি, হাবি ও নিরুপমা। সতীশচন্দ্র ছিলেন ডাক্তার এবং সিভিল সার্জেন, অমরেন্দ্রনাথ ছিলেন জেলার, রবীন্দ্রনাথ ডাক্তার ও সৌরেন্দ্রনাথ ছিলেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুটবল, ক্রিকেট ও হকির ক্যাপ্টেন ও ব্লু। পরবর্তীকালে মোহনবাগান ক্লাবে খেলতেন ও নিজস্ব ব্যবসা শুরু করেন। আমি নরেন্দ্রনাথের দ্বিতীয় পুত্র অক্ষয়কুমারের একমাত্র পুত্রসন্তান। আমার পাঁচ বোন। আমার ওপরে দুই দিদি মিনতি ও প্রনতি।…

আমার জীবনকথা- ভাগ-১

  পিতৃ-মাতৃকুলের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি রোটারিয়ান স্বপন কুমার মুখোপাধ্যায় আমাদের মুখোপাধ্যায় পরিবারের আদি পুরুষ বলতে আমরা বুঝি আদ্যনাথ মুখোপাধ্যায়। ইনি বসবাস করতেন সূতানটীর বাগবাজার অঞ্চলে। ইনি ছিলেন একজন বাকসিদ্ধ পুরুষ। বাগবাজার সিদ্ধেশ্বরী মন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা। ওনার পুত্র হরনাথ মুখোপাধ্যায় ছিলেন একজন ভজন সিদ্ধ পুরুষ। উনি বাস করতেন হুগলি জেলার কোন্নগরে। উনি ছিলেন কালী সাধক। স্থানীয় আদিবাসিরা তাকে আদর করে বলতেন “হরপাগলা”। ওনার পুত্র গিরিশ চন্দ্র মুখোপাধ্যায় সম্বন্ধে আমার কোনো জ্ঞান নেই। কিন্তু ওনার পুত্র পন্ডিত হরিনাথ মুখোপাধ্যায় আমার প্রপিতামহ। উনি বাস করতেন উত্তর কলকাতার দর্জিপাড়ায় অর্থাৎ হরি ঘোষ ষ্ট্রিটে। ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর…

“আমার জীবনকথা” – একটি আত্মজীবনী

  অরিন্দম রায় চৌধুরী, ব্যারাকপুরঃ জীবনের অনেক উত্থান-পতনের মাঝ দিয়ে জীবনের ৮৪টা বছর পার করেছেন রোটারিয়ান স্বপন কুমার মুখোপাধ্যায়। নিজের চোখে দেখেছেন ইংরেজ শাসন থেকে শুরু করে তদানীন্তন কলকাতার অনেক অজানা তথ্য। এসেছেন অনেক খ্যাতনামা মানুষের সান্নিধ্যে। সাবেকী কলকাতার সেই সব স্মৃতিই প্রকাশিত হয়েছে তারই নিজের আত্মজীবনী “আমার জীবনকথা”-র মাধ্যমে। বর্তমানে ব্যারাকপুরের মণিরামপুরের বাসিন্দা, একবার বাইপাস অপারেশন হওয়ার পর আজও তিনি কিন্তু সচ্চল-সবল ও নিষ্ঠার সাথে করে চলেছেন তার নিত্য দিনের কর্ম ও মানব সেবার কাজের পাশাপাশি নানা লেখার কাজ। ৮৪ বছর বয়েসি এই প্রাঞ্চছল লেখকের লেখনীর প্রতি পরতে রয়েছে এক…

রাজা রামমোহন রায় এবং কলকাতা পুলিশ মিউজিয়াম

  ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গলটুডে, কলকাতাঃ   কে ওই মেয়েটি ? সবার থেকে আলাদা! ভিড়ের মধ্যেও চোখে পড়তে বাধ্য। নাচের আসর জমজমাট। যাঁরা নাচছেন,তাঁদের পোশাকে রঙের রোশনাই। শরীরে ঝলমল গয়নাগাটি থেকে আলো ঠিকরোচ্ছে যেন। রকমারি বাদ্যযন্ত্র সুর তুলছে মাতোয়ারা। তালে তালে নাচছে মেয়েরা।যাদের মধ্যে একজন,ওই মেয়েটি, বিভঙ্গের বাহারে নজর কাড়ছে মন্ত্রমুগ্ধ অতিথিদের।নাচছে তো নয়, যেন উড়ে বেড়াচ্ছে। ‘ Who is she ?’ গৃহকর্তাকে জিজ্ঞেস না করে পারেন না ফ্যানি। গৃহকর্তার চেহারায়-চলনে-বলনে আভিজাত্যের অনায়াস আধিপত্য। দীর্ঘকায়, সৌম্যদর্শন, কথাবার্তা অত্যন্ত মার্জিত। যেমন পাণ্ডিত্য, তেমনই রুচিবোধ। অতিথি ফ্যানির প্রশ্নের জবাব দেন সহাস্যে। ‘ ওই মেয়েটি ?…

আজ রাজা রামমোহন রায়ের জন্মবার্ষিকীতে গুগলের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন

শর্বাণী দে, বেঙ্গল টুডে রাজা রামমোহন রায় ১৭৭২ সালে ২২ মে হুগলী জেলার রাধানগর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত কুলীন বংশে জন্মগ্রহন করেন। বাবা বৈষ্ণব ব্রাহ্মণ রামকান্ত রায় ও মা শৈব তারিণীদেবী । এদিন এই মহান মানুষের জন্মবার্ষিকীতে গুগল ডুডলের তরফ থেকেও সম্মান জানানো হয়। এদিন গুগলের এই ডুডলের মাধ্যমে প্রত্যেক ভারতবাসিকে মনে করিয়ে দেন “আধুনিক ভারতে স্রষ্টা এবং “ভারতীয় নবজাগরণের পিতা” কথা। রামমোহন রায় তার বাবা মায়ের ভিন্ন দর্শন শৈশব থেকেই প্রভাবিত হয়েছিলেন। রামমোহন রায় পনেরো-ষোলো বছর বয়সে তিনি গৃহত্যাগ করে নানাস্থানে ঘোরেন। কাশীতে ও পাটনায় কিছুকাল ছিলেন এবং নেপালে গিয়েছিলেন।…

‘মাদার্স ডে’ দিনটি পালিত হয় কেন জানেন?

শর্বাণী দে, বেঙ্গল টুডেঃ মে মাসের দ্বিতীয় রবিবার সারা পৃথিবীতেই পালন করা হয় মাদার্স ডে। এই একটি দিন বেছে নেওয়া হয়েছে পৃথিবীর সব মায়েদের সম্মান ও ভালবাসা দেখিয়ে তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জন্য। কিন্তু সত্যি কি এই একটি দিন পালন করে আমরা পৃথিবীর সব মায়ের ঋণ শোধ করতে পারি? সেই তর্ক না হয় পরে হবে। এখন জেনে নেওয়া যাক, ‘মাদার্স ডে’-র পেছনের কিছু ইতিহাস। প্রথম ‘মাদার্স ডে’ পালন করা হয়েছিল ১৯০৮ সালে। অ্যানা জার্ভিস নামের একজন মার্কিন ভদ্রমহিলা তাঁর মায়ের স্মৃতির উদ্দেশ্যে পশ্চিম ভার্জিনিয়ার সেন্ট অ্যান্ড্রু মেথোডিস্ট চার্চে একটি দিন…

সত্যজিৎ রায়ের ৯৭তম জন্মদিন

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গল টুডেঃ ২রা মে বিখ্যাত চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায়ের ৯৭ তম জন্মবার্ষিকী। ১৯২১ সালে কলকাতা শহরে সাহিত্য ও শিল্প জগতে খ্যাতনামা এক বাঙালি পরিবারে তিনি জন্মগ্রহন করেন। তার বাবার নাম সুকুমার রায় এবং মায়ের নাম সুপ্রভা রায়। তিনি কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ ও বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন। সত্যজিতের কর্মজীবন একজন বাণিজ্যিক চিত্রকর হিসেবে শুরু হলেও প্রথমে কলকাতায় ফরাসি চলচ্চিত্র নির্মাতা জঁ রনোয়ারের সাথে সাক্ষাৎ ও পরে লন্ডন শহরে সফররত অবস্থায় ইতালীয় নব্য বাস্তবতাবাদী ছবি লাদ্রি দি বিচিক্লেত্তে (ইতালীয় ভাষায় Ladri di biciclette, “বাইসাইকেল চোর”) দেখার পর তিনি চলচ্চিত্র নির্মাণে উৎসাহীত হন।…

চড়ক পূজার কথা

পল মৈত্র, দক্ষিণ দিনাজপুরঃ চড়ক পূজা বিশেষত বাঙালী হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লোকোৎসব। চৈত্রের শেষ দিনে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয় এবং বৈশাখের প্রথম দু-তিন দিনব্যাপী চড়ক পূজার উৎসব চলে। লিঙ্গপুরাণ, বৃহদ্ধর্মপুরাণ এবং ব্রহ্মবৈবর্তপুরাণে চৈত্র মাসে শিবারাধনা প্রসঙ্গে নৃত্যগীতাদি উৎসবের উল্লেখ থাকলেও চড়ক পূজার উল্লেখ নেই। পূর্ণ পঞ্চদশ-ষোড়শ শতাব্দীতে রচিত গোবিন্দানন্দের বর্ষক্রিয়াকৌমুদী ও রঘুনন্দনের তিথিতত্ত্বেও এ পূজার উল্লেখ পাওয়া যায় না। উচ্চ স্তরের লোকদের মধ্যে এ অনুষ্ঠানের প্রচলন খুব প্রাচীন নয়। তবে পাশুপত সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রাচীনকালে এ উৎসব প্রচলিত ছিল। চড়ক পূজা কবে কিভাবে শুরু হয়েছিল তার সঠিক ইতিহাস জানা যায়নি।…

আর মাত্র ২ দিন পরই দোল উৎসব, আপনারা কি জানেন দোল পূর্ণিমা বা হোলি উৎসব কেন পালন করা হয়?

পল মৈত্র, দক্ষিন দিনাজপুরঃ দোল পূর্ণিমা বা হোলি উৎসব কোন উৎসব বা সংস্কৃতির সাথে আমরা পরিচিত সেই আদিম কাল থেকেই। এক এক প্রজাতির ভিন্ন ভিন্ন মানুষ, ভিন্ন ভিন্ন মতবাদে বিশ্বাস করে আর সেই অনু্যায়ী অনেক আচার অনুষ্ঠান, নিয়ম কানুন মেনে চলে। কিছু কিছু ধর্মীয় অনুষ্ঠান শুধুমাত্র সেই সব ধর্মের অনুসারীরাই পালন করে। অন্যান্য ধর্মের অনুসারীরা দেখতে পারে বা ইচ্ছা করলে সেই অনুষ্ঠানের আনন্দ ভাগ করে নিতে পারে। হোলি উৎসব তার মধ্যে একটি। হোলি উৎসবে সাধারণত রঙ বা আবির(এক ধরনের গুড়ো রং) নিয়ে একে অন্যের গাঁয়ে দিয়ে দেয়া হয়। ব্যপারটা অনেকটা…