অশোকনগর গেঞ্জির কারখানায় ভয়াবহ আগুন, লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি

  শান্তনু বিশ্বাস, অশোকনগরঃ উওর ২৪ পরগনার অশোকনগর কল‍্যাণগর পৌরসভার ১০নম্বর ওয়ার্ডের প্রগতি সংঘ এলাকায় শঙ্কর চক্রবতী বাড়িতে দীর্ঘ পনেরো বছর ধরে চলে আসা গেঞ্জির কারখানায় ভয়াবহ আগুন। ১০ই নভেম্বর শনিবার মাঝরাতে এলাকাবাসীর চিৎকারে ঘুম থেকে উঠে দেখেন কারখানায় আগুন জ্বলছে। সাথে সাথে স্থানীয় বাসিন্দারা জল দিয়ে আগুন নেভানোর কাজ করে। পরে দমকলের একটি ইঞ্জিন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এর জেরে লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান শঙ্কর চক্রবতী। শঙ্কর চক্রবতী আরও বলেন, এদিন রাত দেড়টা নাগাদ ঘুমাতে যাবার সময় কারখানা ঠিকঠাক ছিল। মাঝরাতে এলাকাবাসীর চিৎকারে ঘুম থেকে উঠে দেখে কারখানায় আগুন…

বিয়ে বাড়ির অনুষ্ঠানে চপার নিয়ে হামলা, মৃত ১, আহত ২

  শান্তনু বিশ্বাস, হাবড়াঃ  ১০ই নভেম্বর হাবড়া খজদেলপুর এলাকায় বিয়ে বাড়ির অনুষ্ঠান শেষে পাঁঠা কাটার জায়গা নিয়ে বিবাদ। উতক্ত বাক্য বিনিময়ের মধ্যে আচমকাই চপার নিয়ে হামলা বছর ৩৫-এর এক যুবকের। অভিযুক্তের নাম সাইফুল সাহাজী। এদিন দুজনকে চপার দিয়ে এলোপাথারি কোপায় অভিযুক্ত ব্যক্তি। আহত দুজনের নাম টপি সাহাজী(৩২) ও জুমমান মন্ডল (৫০)। যদিও ঘটনার পরে স্থানীয় বাসিন্দারা আহত দুই ব্যক্তিকে রক্তাক্ত অবস্থায় হাবড়া হাসপাতালে নিয়ে আসলে তাদের কলকাতায় রেফার করা হয়। অপরদিকে ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা এদিন সন্ধ্যে নাগাদ অভিযুক্তের খোঁজ পেয়ে যশোর রোডের অশোকনগর মানিকতলা এলাকায় অভিযুক্ত সাইফুল সাহাজীকে গণপিটুনি…

হিন্দিভাষীদের থেকে শুরু করে এখন বাঙ্গালীরাও মেতেছে ছটপুজোয়

  পল মৈত্র, দক্ষিন দিনাজপুরঃ বৈদিক যুগ থেকেই সূর্যদেবতার পুজো চলে আসছে। ছট পুজো হল আসলে সূর্য পুজো। তাহলে নাম কেন ছট পুজো? আসলে ছয় কথাটাকে নেপাল বা উত্তর ভারতের অনেকে ছট বলে থাকেন। পুজোটি কার্তিক মাসের শুক্ল ষষ্ঠীর দিন হয়, সেখান থেকেই ছট শব্দের উৎপত্তি। আর তা থেকেই ছট পুজো। ত্রেতাযুগে শ্রীরামচন্দ্র ও সীতাদেবী শুক্ল ষষ্ঠীর দিনেই সূর্যদেবের আরাধনা করেছিলেন। আবার দ্বাপরে সূর্যপুত্র কর্ণ অঙ্গদেশের রাজা ছিলেন। তিনিও সূর্যদেবের পুজো করেন। অঙ্গদেশ এখন বিহারের ভাগলপুর হিসেবে চিহ্নিত। পুরাণেও উল্লেখ আছে ছট পুজোর। ভারতের উত্তরাখণ্ড, বিহার, উত্তরপ্রদেশ, ঝাড়খণ্ড, মধ্যপ্রদেশ ও…

অভিনব গণ ভাইফোঁটা ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের

  অরিন্দম রায় চৌধুরী, ব্যারাকপুরঃ “ভাই-এর কপালে দিলাম ফোঁটা, যম দুয়ারে পড়ল কাঁটা, যমুনা দেয় যমকে ফোঁটা, আমি দিই আমার ভাইকে ফোঁটা” এই মন্ত্র বলেই ভারতের লক্ষ লক্ষ বোনেরা তাদের ভাইয়ের কপালে ফোটা দিয়ে ভাইয়ের মঙ্গল ও দীর্ঘায়ু কামনা করে। ভাই এর প্রতি বোনের এই ভালবাসা ধরা দেয় ভাইফোঁটা অনুষ্ঠানে। বস্তুত পারিবারিক এই অনুষ্ঠানটি সকল ভাইয়ের প্রতি বোনের যে মমতা তুলে ধরে তা অনন্য। তাই ভাইফোঁটা সকল ভাইয়ের, সকল বোনের অনুষ্ঠান। পারিবারিক নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে এই আয়োজনটি অনুষ্ঠিত হয়। সাধারণত ভাইরা বোনেদের কাছে এসে চন্দন চর্চিত ফোঁটা নেয়। বোন…

একের পর এক অগ্নিকান্ড, দায়িত্ব জ্ঞানহীন ব্যবসায়ী, ঘুমন্ত পুরসভা, নির্লিপ্ত প্রশাসন

  রাজীব মুখার্জী, কলকাতাঃ একের পর এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটার পরেও কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই কারও। যখন ঘটনা ঘটে তখন আলোচনা, সুরক্ষা বিধি, দায় চাপানোর চাপান উত্তর চলে। সাম্প্রতিক মেহেতা বিল্ডিং, থেকে শুরু করে ৯ই নভেম্বর রাতের উল্টোডাঙার বেআইনি কারখানায় আগুন লাগার ঘটনা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিলো কলকাতা আছে কলকাতাতেই। এই রাজ্যে পুজোর অনুমতি নিতে দমকল বিভাগের সার্টিফিকেট নিতে হয় কিন্তু ঘিঞ্জি ব্যবসার জায়গাতে সেই নজরদারির প্রয়োজন পরে না। কয়েকদিন আগেই পার্কস্ট্রিটের এ.পি.জে. বিল্ডিং, বড় দুর্ঘটনা থেকে বেঁচেছিল অগ্নিনির্বাপণের সুব্যবস্থা থাকার জন্য। প্রমাণ দিচ্ছে পুড়ে ছাড়খাড় হয়ে যাওয়া বাগরি মার্কেট চত্বর…

বসিরহাট থানার উদ্যোগে ভাইফোঁটা

  অর্ণব মৈত্র, বসিরহাটঃ বসিরহাট থানার উদ্যোগে দীপাবলীর উপলক্ষে গত কয়েকদিন ধরে সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে থানা চত্বরে। শুক্রবার ৯ই নভেম্বর সেখানেই আয়োজন করা হয়েছিল গণ ভাইফোঁটার। ভাই ফোঁটার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয় একটি অনাথ আশ্রম ও বসিরহাটের একটি মাদ্রাসাকে। থানার আমন্ত্রণ পেয়ে হাজির হয় বসিরহাটের অনাথ আশ্রম লাইফ লাইন এর ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরা ও বসিরহাট আমিনিয়া মাদ্রাসার ছেলেরা। থানার অনুষ্ঠান মঞ্চে চলে গণ ভাইফোঁটার পালা। জাত-পাতের ঊর্ধ্বে উঠে ভাইফোঁটার অনুষ্ঠান রূপ পায় সম্প্রীতির গণ ভাইফোঁটায়। ভাইফোঁটার মিষ্টি মুখের পাশাপাশি ভাইদের জন্য উপহারেরও আয়োজন করা হয় পুলিশের পক্ষ থেকে।…

আসামীর মঙ্গল কামনায় ভাইফোঁটা উৎযাপন ভাঙড় থানার মহিলা পুলিশকর্মীদের

  অর্ণব মৈত্র, ভাঙরঃ সম্প্রীতির বার্তা এবং থানা এলাকার মানুষের সঙ্গে পুলিশের জনসংযোগ বাড়াতে আসামীর মঙ্গল কামনায় ভাইফোঁটা উৎযাপন ভাঙড় থানায়। ভাঙড় থানার মহিলা পুলিশ কর্মী সুচরিতা, রোজিনাদের ধান-দূর্বা উঠল ‘ভাই’দের মাথায়। সেই ভাই আর কেউ নয় থানায় ধৃত আসামী। বলা চলে আসামীর মঙ্গল কামনায় তাঁদের মাথায় ফোঁটা দেওয়া হল। থানা ভর্তি জনগণের সমবেত কণ্ঠে উচ্চারিত হল— ‘ভাইয়ের কপালে দিলাম ফোঁটা, যমের দুয়ারে পড়ল কাঁটা’। ৯ই নভেম্বর শুক্রaবার ভাঙড় থানা এলাকার বিভিন্ন ধর্মের মানুষকে নিয়ে উৎসবের মেজাজে সম্প্রীতির ভাইফোঁটা অনুষ্ঠিত হয়। থানার পুলিশ কর্মী থেকে এলাকার জনপ্রতিনিধি সহ বিশেষ ভাবে…

ট্রেনের তলায় ঝুলন্ত গার্ডকে নিয়ে দৌড়ল ট্রেন

  রাজীব মুখার্জী, হাওড়াঃ লোকেরা বলে রাখে হরি তো মারে কে!‌ ফের একবার তার প্রমাণ মিলল ৯ই নভেম্বর হাওড়া স্টেশনে। ট্রেনের নিচে যান্ত্রিক ত্রুটি সারাতে ঢুকেছিলেন ওই ট্রেনের গার্ড। এদিন সকাল ১১ টা বেজে ২০ মিনিট। আচমকা চেন টানায় দাঁড়িয়ে পড়ে হাওড়া–দিঘা এসি সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস। ট্রেন ছাড়ার সময় কোনও একজন যাত্রী চেন টানেন। চেন টানার ফলে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এয়ার পাইপ। গার্ড তখন সেই এয়ার পাইপ লাগাতেই ট্রেনের তলায় ঢোকেন। কিছু সময়ের মধ্যে ভ্যাকুইউম পাইপটি লাগিয়ে ফেলেন ট্রেনের গার্ড। সামান্য একটু যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেওয়ায় নিজেই ট্রেনের নিচে গিয়ে সেটি…

ভাইফোঁটার ইতিকথা

  পল মৈত্র, দক্ষিন দিনাজপুরঃ সভ্যতার ইতিহাসের সাথে সংস্কৃতির এক অদৃশ্য যোগসূত্র রয়েছে। সেই ধারায় অনেক আচার-অনুষ্ঠান শতাব্দীর পর শতাব্দী পালিত হয়ে আসছে নিয়মনিষ্ঠার সঙ্গে। এমনই একটি সংস্কার ‘ভাই ফোঁটা’। যার পোশাকি নাম ‘ভাতৃদ্বিতীয়া’। প্রতি বাংলা বছরের কার্তিক মাসের শুক্ল পক্ষের দ্বিতীয়া তিথিতে পালিত হয় এ অনুষ্ঠান। ভাইয়ের মঙ্গল কামনায় তার কপালে টিকা দেন বোন। তাই ‘ভাইটিকা’ বললেও ভুল হবে না। ভাই ফোঁটা নিয়ে রয়েছে অনেক গল্প-কাহিনী। দিদা-ঠাকুরমাদের কাছ থেকে শোনা, মৃত্যুদূত যম ও যমুনা যমজ ভাইবোন। সূর্যের ঔরসে জন্ম তাদের। বড় হওয়ার পর দুজনে আলাদা হয়ে যান। থাকতেন পরস্পর…

আলোর উৎসবের আতঙ্কে তিন পরিবার

শান্তনু বিশ্বাস, হাবড়াঃ রাজ্যসরকার শব্দবাজি নিষিদ্ধ করার পরেও বিক্রি হচ্ছে সেই শব্দবাজি। আর সেই শব্দবাজির আঘাতে গুরুতর জখম কাশীপুর মধ্যপাড়ার চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র নয়ন বিশ্বাস। পরিবার সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন ৭টা নাগাদ বন্ধুদের সাথে বেরিয়েছিল বছর এগারোর ওই কিশোর। আলোর উৎসবকে কেন্দ্র করে কম বেশি সকলের হাতেই ছিল রংবেরঙের বাজি, হঠাৎই এক বন্ধু বাজার থেকে চকলেট বাজি কিনে আনে বন্ধুরা ফাটাবে। এরপর রাস্তার পাশে কুড়িয়ে পায় একটি সেল বাজির খোল। তার মধ্যে রেখে সলতের মধ্যে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। কিছু সময় কেটে গেলেও চকলেট বাজিটি না ফাটায় উঁকি মেরে দেখতে…