ঠান্ডা পড়তেই শীতবস্ত্র ব্যবসায়ীদের ভীড় ফুটপাত জুড়ে

  পল মৈত্র, দক্ষিণ দিনাজপুরঃ গত কয়েকদিন ধরে শীত শীত করছে শীতের আমেজে অনেকে যবুথবু আর তাই শীত থেকে বাঁচতে অগ্রীম প্রয়োজন শীতের পোশাক আর সে কারনে খুচরা ব্যবসায়ীরা ফুটপাতগুলোতে বসছে শীতের কাপড়ের পসরা সাজিয়ে। কয়েক দিনের শীতের আমেজে জেলার বিভিন্ন ফুটপাতের দোকানগুলোয় যেন শীতের পোশাক কেনার ধুম পড়েছে। নিম্ন আয়ের মানুষ রাস্তার পাশের এসব দোকানে ভিড় জমাচ্ছেন। সরেজমিনে মার্কেটগুলোতে ঘুরে দেখা গেছে, শীত বস্ত্রের মধ্যে বেশি বেচা-বিক্রি হচ্ছে- ছোট বাচ্চা ও বয়স্কদের কাপড়। মাথার টুপি, পায়ের মোজা, হাত মোজা, মাফলার, স্যোয়েটার, জাম্পার, ফুলহাতা গেঞ্জির দোকানেই বেশি ভিড় দেখা গেছে। এক…

আমার জীবনকথা- ভাগ-৩

পিতৃ-মাতৃকুলের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি রোটারিয়ান স্বপন কুমার মুখোপাধ্যায় আমার পিতৃদেব স্বর্গীয় অক্ষয় কুমার মুখোপাধ্যায় হলেন আমার পিতামহ ডাক্তার নরেন্দ্র কুমার মুখোপাধ্যায়ের ও পিতামহী নিভাননী দেবীর মেজ ছেলে। আমার পিতার জন্ম হয় ১৯০০ খ্রিস্টাব্দের মাঘী পূর্ণিমার দিন ঢাকা শহরে। আমার পিতা বহুবিধ গুনের অধিকারী ছিলেন। ঢাকার সরকারি পোগোস স্কুল থেকে ১৯১৭ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত ম্যাট্রিক পরীক্ষায় দশটা বিষয়েই প্রথম স্থান অর্জন করে দশটা সোনার মেডেল অর্জন করে সসম্মানে উত্তীর্ণ হন। তারপর হুগলী জেলার চুঁচুড়ার মহসীন কলেজের আই.এস.সি.-তে ভর্তি হয়ে দু’বছর পর অর্থাৎ ১৯১৯ সালে কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আই.এস.সি. পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার…

৩৫-তম বর্ষে বসিরহাটের ভ্রাতৃ সংঘের জগদ্ধাত্রী পুজো

  অর্ণব মৈত্র, বসিরহাটঃ ক্রীড়া জগতের সঙ্গে যুক্ত বসিরহাটের ‘ভ্রাতৃ সংঘ’। জাতীয় ফুটবলার মিহির ঘোষ এর পৃষ্ঠপোষকতায় ক্রীড়া জগতের পাশাপাশি প্রতিবছরই জগদ্ধাত্রী পুজোর আয়োজন করা হয় ভ্রাতৃ সংঘের পক্ষ থেকে। এবছর ৩৫ তম বছরে পা দিয়েছে ভ্রাতৃ সংঘের জগদ্ধাত্রী পুজো। এবছর কুমরটুলির পশুপতি রুদ্র পাল এর প্রতিমা ও সাবেকি মন্ডপ যথেষ্ঠ নজর কেড়েছে বসিরহাটের দর্শনার্থীদের। সময়ের সঙ্গে সামাঞ্জস্য রেখে আয়োজন করা হয়েছে আলোকসজ্জাও। এবছর প্রায় সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা ব্যয়ে পুজো হচ্ছে বলে জানান পুজো উদ্যোক্তারা। খেলাধুলাকে বাঁচিয়ে রাখার পাশাপাশি জগদ্ধাত্রী পুজোর মধ্যে দিয়ে বাংলার লোকসংস্কৃতিকেও বাঁচিয়ে রাখার প্রয়াস চালিয়ে…

সল্টলেক এফ ই ব্লকে স্বাস্থ্য দফতরের হানা

  অর্ণব মৈত্র, সল্টলেকঃ ১৭ই নভেম্বর সল্টলেক এফ ই ব্লকে বিধাননগর কর্পোরেশনে স্বাস্থ্য দফতরের হানা। এই ব্লকের মধ্যে থাকা দুটো বস্তিতে চলে ডেঙ্গু অভিযান। মিলল প্রচুর পরিমান লার্ভা। এর জেরে ১৫ দিনের মধ্যে বস্তি খালি করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলো বস্তি বাসিদের। না খালি করলে বুলডেজার দিয়ে ভেঙে ফেলা হবে বলেও জানান মেয়র পরিষদ প্রণয় রায়। আগামী দিনে বাকি বস্তিতেও অভিযান চালানো হবে বলেও জানান তারা। সম্প্রতি সল্টলেকে সোয়াইনফ্লুতে এক মহিলার মৃত্যুর ঘটনায় নড়েচড়ে বসলো বিধাননগর কর্পোরেশন। এদিন সকাল ১১:৩০ টার পর থেকে সল্টলেকের এফ ই ব্লকে বিধাননগর কর্পোরেশনের মেয়র পরিষদ…

নন্দীগ্রামে রায় পরিবারের ৫১ তম জগদ্ধাত্রী পূজো

  রাহুল রায়, পূর্ব বর্ধমানঃ পূর্ব বর্ধমান জেলার কাটোয়া ২নং ব্লকের শ্রীবাটী গ্ৰাম পঞ্চায়েত অন্তর্গত নন্দীগ্রামে। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে শোনা যায় নন্দীগ্রামে আগে রায় পরিবারের জমিদারি ছিল। তখন বর্ধমান জেলার ধেয়া পরগনার বেশ কিছুটা লাভ করেছিল নন্দীগ্রামে রায় পরিবার। নন্দীগ্রামের জমিদার রেনুপদ রায়ের স্ত্রী দিনতারিণী রায় স্বপ্নাদেশ পেয়ে জগদ্ধাত্রী পূজো শুরু করেছিলেন। নন্দীগ্রামে রায়বাড়ির জগদ্ধাত্রী পূজো এবছর ৫১ তম বর্ষের পদার্পন করল। পরিবারের বর্তমান প্রজন্মই চালাচ্ছেন এই পূজো। রেণুপদবাবু নাতী গৌতম রায়, বাপি রায়, খোকন রায় জানিয়েছেন, অতীত আমলে পদ্ধতি মেনেই জগদ্ধাত্রী পূজো করা হয়। একইদিনেই সপ্তমী, অষ্টমী, নবমীর পূজো…

জনপ্রিয় টিভি শো-এর প্রতারনায় খোয়ালেন ২৫ হাজার টাকা

  শান্তনু বিশ্বাস, হাবড়াঃ ১৫ই নভেম্বর উওর ২৪ পরগনার হাবড়া থানার অন্তরগর্ত রাউতারা এলাকায় বছর ২২-এর আপতারুল ইসলামের ফোনে একটি অডিও মেসেজ আসে, আর তাতে দেওয়া থাকে ফোন নম্বর। এরপর সে ফোন নম্বরে ফোন করতেই ঘটে বিপত্তি। প্রতারকদের ফাঁদে পা দিতেই খোয়া যায় ২৫ হাজার টাকা। এমনটাই জানান আপতারুল ইসলাম। অভিযোগ, ওই ফোন নম্বরে ফোন করতেই এমডি রাজকুমার, কেবিসি নামক কোম্পানির ম‍্যানেজার বলে জানায় আপতারুল ইসলামকে। এমনকি সে জানান আপতারুল ইসলাম ২৫ লক্ষ টাকা পুরস্কার পেয়েছে। আর সেই টাকা পেতে হলে সরকারি ট্রাস্ট সহ ২৫ হাজার টাকা দিতে হবে সাথে…

‘পাগলা হাতির মতো আচরণ করছেন মুখ্যমন্ত্রী’-কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের

  রাজীব মুখার্জী, শরৎ সদন, হাওড়াঃ নজিরবিহীন ভাষায় আক্রমণ করলেন বি.জে.পি.-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। ১৭ই নভেম্বর হাওড়া ময়দানের শরৎ সদনে দলীয় সভায় ভাষণ দিতে এসে তিনি বক্তব্য রাখেন ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কে চাঁচা ছোলা ভাষায় আক্রমণ করেন। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোট যতই এগোচ্ছে ততই বাড়ছে তৃণমূল-বিজেপির বাকযুদ্ধ, আর এবার গল্পের ছলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে “পাগলা হাতি”- র সঙ্গে তুলনা করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন আরও একাধিক ইস্যুতে তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি দেন তিনি সভা থেকেই। তিনি এই রাজ্যের পুলিশ আধিকারিকদেরকেও “পালিশ করার” হুমকি দেন। আজ শনিবার হাওড়ার শরৎ সদনে বিজেপির সংযুক্ত…

আমরাও কিন্তু মায়ের সন্তান – ডঃ সন্তোষ কুমার গিরি

অরিন্দম রায় চৌধুরী, ব্যারাকপুরঃ বর্তমানে শুধুমাত্র হুগলির চন্দন নগরেই নয় উত্তর চব্বিশ পরগনার ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলের বিভিন্ন্য এলাকাতেই ধুমধামের সাথে পালিত হচ্ছে জগদ্ধাত্রী পুজা। একদিকে যেমন আলোকসজ্জায় সেজে উঠেছে রাস্তাঘাট তেমনই আবার পুজো মণ্ডপগুলিও নানান আকারের তৈরি হয়েছে, তার মধ্যেই তৈরি হয়েছে সুসজ্জিত দীর্ঘকায় জগদ্ধাত্রী প্রতিমা যা দেখতে ভিড় জমাছে মানুষ। এমনই দৃশ্য ধরা পড়লো ব্যারাকপুর করুণাময়ী রোডের “আমরা সবাই” ক্লাবের পূজা মণ্ডপে গিয়ে। আরও চমক দিলেন এই ক্লাবের সদস্য-সদস্যারা যখন দেখা গেল এবারে তাদের ৪৯তম বর্ষের জগদ্ধাত্রী পুজোর উদ্বোধন করলেন ভারতবর্ষের প্রথম রূপান্তরকামী মহিলা ডঃ সন্তোষ কুমার গিরি। দীপ জ্বেলে…

আবার বদলি হলেন ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনার

  অরিন্দম রায় চৌধুরী, ব্যারাকপুরঃ ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট বা ব্যারাকপুর সিটি পুলিশ হল পশ্চিমবঙ্গের ব্যারাকপুর মহকুমা এলাকার আইন শৃঙ্খলার রক্ষার্থে গঠিত একটি বিশেষ পুলিশ বাহিনি। ২০১২ সালের ২০ জানুয়ারি এই কমিশনারেট গঠিত হয়। এটি পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের অঙ্গ এবং পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নিয়ন্ত্রণাধীন। উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা পুলিশ বিভাগকে ভেঙে এই কমিশনারেট তৈরি হয়েছে। এই কমিশনারেটের অধীনে ১২টি থানা রয়েছে। থানাগুলি যথারীতি হল বীজপুর থানা, নৈহাটি থানা , জগদ্দল থানা, নোয়াপাড়া থানা, ব্যারাকপুর থানা, টিটাগড় থানা, খড়দহ থানা, ঘোলা থানা, বেলঘড়িয়া থানা, বরানগর থানা, ও নিমতা থানা। স্বাভাবিক ভাবেই ব্যারাকপুর পুলিশ…

পার্কেই ট্রাফিক নিয়ম শেখাচ্ছে হাওড়া পুলিশ কমিশনারেট

  রাজীব মুখার্জী, হাওড়াঃ পথ নিরাপত্তাকে সামনে রেখে এইটি একটি খুব নজিরবিহীন কাজ হাওড়া পুরসভার পক্ষ থেকে, a ফরশোর রোডের মতো ব্যস্ত রাস্তার ধারে তৈরি হয়েছে এই পার্ক। এই ব্যস্ত রাস্তায় রোজ প্রচুর গাড়ির যাতায়াত, তাই এই রাস্তাকে বেছে নেওয়া হয়েছিল যাতে বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়। এইখানে বেশ কিছু স্কুল আছে তাদের মধ্যেও এই বিষয়ে সচেতনতা গড়ে তোলা যাবে। পুলিশ সূত্রে জানানো হচ্ছে, যে এই স্কুলের বাচ্ছাদের থেকে খুব সহজে সচেতনতা গড়ে তোলা সম্ভব। এই পার্কে এসে এই অভিজ্ঞতা ও সচেতনতা খুব সহজেই তারা তাদের অভিভাবক, আত্মীয়, বন্ধুবান্ধবদের…