ব্যারাকপুর ওল্ড ক্যালকাটা রোডের বেহাল দশার জন্য এলাকাবিসদের রাস্তা অবরোধ

Share Bengal Today's News
  • 83
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    83
    Shares

শর্বাণী দে ও নিহা কর্মকার, ব্যারাকপুরঃ

৩০শে মে, সকাল ৯টা থেকে ব্যারাকপুর ওল্ড ক্যালকাটা রোডে রাস্তা অবরোধ করলো এলাকাবাসী। এই রাস্তা ব্যারাকপুর ১৪নং রেল গেট থেকে সোজা সোদপুর অবধি একটি সংযোগকারী রাস্তা। এক সময় এইটি ছিল ব্যারাকপুর থেকে কলকাতার মূল যোগাযোগকারি রাস্তা। রাস্তার বেশ খানিকটা পথের দুই ধারে মুলত মুসলিম অধ্যুষিত এলাকা। তারই মধ্যে পড়ে ব্যারাকপুর পৌরসভার ১৭ নং ওয়ার্ডের মন্ডলপাড়া যা ব্যারাকপুর ওল্ড ক্যালকাটা রোডের উপরেই অবস্থিত।

অবরোধকারীদের দাবী দীর্ঘ ৬য় মাস ধরে স্বয়ারেজ করার নাম করে রাস্তা খুরে রাখার ফলে প্রায় রোজই এখানে দুর্ঘটনা ঘটছে। অনেক বার এলাকা থেকে তাদের মসজিদ কমিটি স্থানীয় পৌরসভায় জানিয়েও কোন লাভ হয়েনি। প্রসঙ্গত এই রাস্তার ধারেই রয়েছে একটি মসজিদ যেখানে এবার তারা কি ভাবে ঈদের নামাজ পড়বে তাই এখন চিন্তায় ফেলেছে সমগ্র এলাকাবাসীকে।

অবরোধকারীদের মধ্যে জনৈক মহঃ রিয়াজনুল অভিযোগ করেন, “কেউ কি সেধে অবরোধ করে বলুন? আর কেউ এত বোকাও নয় যে চলতি রাস্তা বন্ধ করে রাখবে! আমরা সব সময়ই চাই রাস্তা সচল থাকুক যাতে মানুষ ঠিক ভাবে যাতায়াত করতে পারি কিন্তু গত ৬মাস ধরে এই রাস্তা খুরে স্বয়ারেজের পাইপ বসানো হলো, তারপর থেকে আজ অবধি রাস্তার অবস্থা তথৈবচ এবং এই বিষয় এলাকাগত ভাবে ও স্থানীয় মসজিদগত ভাবে বার বার স্থানীয় ব্যারাকপুর পৌরসভার ১৭নং এর কাউন্সিলর থেকে পৌরপ্রধানকে অভিযোগ করার পরও আজ অবধি কোন সুরাহা হয়েনি ফলে রোজ এই রাস্তায় দুর্ঘটনার হার দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। চলতি অটো থেকে শুরু করে রোগী বহন কারী এ্যাম্বুলেন্স, পণ্যবাহী গাড়ী এমনকি যাতায়াতের পথে পথচলতি মানুষও যখনতখন দুর্ঘটনার কবলে পড়ছে।” তিনি আরও বলেন,”আমরা আজ সিধান্ত নিয়েছি আগামীকাল অর্থাৎ ৩১শে মে থেকে যদি রাস্তা মেরামতির কাজ প্রশাসন শুরু না করেছে তাহলে অনির্দিষ্টকালের জন্য আমরা এই অবরোধে সামিল থাকবো”

অপরদিকে স্থানীয় ব্যারাকপুর পৌরসভার পৌরপ্রধান এই ঘটনা সম্বন্ধে আমাদের বলেন, ” আসলে সমস্যা কিছুই নয়, সমস্যা তৈরি করা হয়েছে। ওখানে স্বয়ারেজের পাইপ বসানোর কাজ হয়েছে এবং রাস্তা ঠিক করার অর্ডারও দেওয়া হয়ে গেছে এবং আগামী ১০ই জুনের মধ্যে রাস্তা মেরামতও হয়ে যাবে কারণ আমরা নিজেরাই জানি ওখানে রাস্তার উপরে ঈদের নামাজ পড়া হয়ে।” এরপরই পৌরপ্রধানের পাল্টা অভিযোগ, “ওখানে পাশে একটি ক্লাব স্বয়ারেজের কাজ করতে যাওয়া ঠিকাদারদের কাছে বিপুল অর্থ দাবী করেছিল যা না পেয়েই ওদের কাজে বাধা দেওয়া হচ্ছে। এই বিষয় স্থানীয় টিটাগড় থানায় যথাযথ ভাবে জানানো হয়েছে এবং এই ক্ষেত্রে পুলিশ নিশ্চিত ভাবেই ব্যাবস্থা নেবে। তবে হ্যাঁ, সাধারণ মানুষের যে অসুবিধার কথা আপনারা বলছেন তা নিশ্চয় দূর করা হবে”

পড়ে অবশ্য বিকাল ৪টা নাগাদ টিটাগড় থানার অফিসার ইন চার্জ, শঙ্কর চৌধুরী মধ্যস্থা করার চেষ্টা চালান কিন্তু এখনও এই প্রতিবেদন লেখা অবধি এলাকায় অবরোধ চলছে।

সম্পর্কিত সংবাদ