ঝাড়গ্রামে হাতির হানায় জখম ১

ঝাড়গ্রামে হাতির হানায় জখম ১

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

প্রাতঃভ্রমণ করতে গিয়ে দাঁতালের সামনে পড়ে রেসিডেন্সিয়াল হাতির আক্রমনে গুরুতর ভাবে জখম হন ১ ব্যক্তি। ২৭শে মে ভোর ৫ টা নাগাদ ঝাড়গ্রাম জেলার মাণিকপাড়া রেঞ্জের চুবকা অঞ্চলের বলদমারা গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। বনদফতর জানিয়েছে আহত ওই ব্যক্তির নাম দিবাকর মাহাত ( ৫৫)। বাড়ী বলদমারা গ্রামে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, এদিন ভোর ৫ টা নাগাদ দিবাকর বাবু প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়েছিলেন। সেই সময় গ্রামের পাশে বাঁশঝাড়ের মধ্যে দাঁতালটি দাঁড়িয়েছিল। রাস্তার পাশ দিয়ে পায়ে হেঁটে যেতে যেতে একেবারে হাতির সামনে পড়ে যায়। ওই হাতিটি দিবাকর বাবুকে শুঁড়ে ধরে আছাড় মারে। এরপর দিবাকর বাবুর চিৎকার শুনে পাশাপাশি লোকজনেরা চিৎকার করতে শুরু করলে হাতিটি ওখান থেকে সরে যায়। আর তারপরই সাথে সাথে স্থানীয় মানুষজনেরা তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে ঝাড়গ্রাম জেলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করান। কিন্তু সেখানে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

বনদফতর সুত্রে জানা যায়, মাণিকপাড়া, ঝাড়গ্রাম, লালগড় রেঞ্জ এলাকায় ওই রেসিডেন্সিলায় হাতিটি ঘোরাঘুরি করে। বেশ ক’দিন ধরে হাতিটি মাণিকপাড়া রেঞ্জ এলাকায় রয়েছে। তবে একের পর এক হাতির হামলায় মৃত ও আহতের সংখ্যা বাড়তে থাকায় উদ্বেগ বাড়ছে বনদফতরের।

উল্লেখ্য গত ২২ শে মে বেলপাহাড়ী এলাকার ভূলাভেদা রেঞ্জের তামাজুড়ী গ্রামের বাসিন্দা আখলডোবার জঙ্গলে পাতা, কাঠ তুলতে গিয়ে হাতির আক্রমনে সীমামণি পাল নামে এক মহিলার মৃত্যু হয়। তার ঠিক ৬ দিন কাটতে না কাটতেই ফের হাতির আক্রমনে গুরুতর ভাবে জখম হল এক ব্যক্তি।

এ বিষয়ে ঝাড়গ্রামের এডিএফও সমীর মজুমদার বলেন, এদিন সকালে হাতির আক্রমনে এক ব্যক্তি জখম হয়েছেন। এলাকার মানুষজন জানতেন ওই এলাকায় হাতিটি ঘোরাঘুরি করছে। তা সত্ত্বেও ভোরে বের হওয়ার কি দরকার ছিল। মানুষজন একটু সচেতন হলেই হাতি আক্রমনে মৃত্যু বা জখমের ঘটনা অনেকটাই এড়ানো সম্ভব বলে জানান তিনি। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ওই ব্যক্তি ক্ষতিপূরণ পাবেন বলেও তিনি জানান।

You May Share This
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *