টিটাগড়ে পশ্চিমবঙ্গের প্রথম বেসরকারি কোম্পানি বানালো ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য জাহাজ

Spread the love
  • 138
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    138
    Shares

অরিন্দম রায় চৌধুরী, ব্যারাকপুরঃ

১৭ই মে, ২০১৮ টিটাগড় ওয়াগন একটি 1000 টনের জ্বালানী ট্যাঙ্কার ভারতীয় নৌবাহিনীর হাতে সফল ভাবে তুলে দিল যা নিশ্চিত ভাবে ভারতীয় নৌবাহিনীর গর্বকে সমৃদ্ধ করবে। চুক্তিভিত্তিক সময়সূচির আগেই এই জাহাজটি সফল ভাবে গঙ্গার বুকে ভাসানো হল ১৭ই মে-র বিকেল ৩টা নাগাদ। শুধু এই জাহাজই নয় পাশাপাশি আরও অন্য তিনটি জাহাজের নির্মাণের কাজ অগ্রগতি হচ্ছে। ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য আরও একটি এক হাজার টনের জ্বালানী বার্জ তৈরি হতে চলেছে ও এরই পাশাপাশি ন্যাশনাল ইন্সিটিউট অফ ওসিয়ান টেকনোলজি (মিনিস্ট্রি অফ আর্থ সায়েন্স, গভর্নমেন্ট অফ ইন্ডিয়া)-র জন্য আরও ২টি উপকূলীয় গবেষণার জন্য জাহাজ তৈরি হচ্ছে।

টিটাগড় গ্রূপের একটি প্রধান প্রতিষ্ঠান টিটাগড় ওয়াগনস লিমিটেড, ভারতীয় নৌবাহিনী এবং মিনিস্ট্রি অফ আর্থ সায়েন্স-র জন্য চুক্তি অনুযায়ী চারটি জাহাজের মদ্ধ্যে প্রথম জাহাজটি সফল ভাবে সরকারের লক্ষ্য “মেক ইন ইন্ডিয়া” কে পাথেও করে ১৭ই মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার জলে নামানো হল। ৯ই মে ২০১৭ মোট ২টি ১০০০ টনের জাহাজের তৈরির কাজ শুরু হয়েছিল টিটাগড় সংলগ্ন বি টি রোডের টিটাগড় শিপইয়ার্ডে। তার মধ্যে একটিকে আনুষ্জঠানিক ভাবে লে নামানো হয় যার বিশেষত্ব হল এই 1000 টন জ্বালানি ট্যাংকার বিশেষ ভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যা মধ্য সমুদ্রে তেল বহন করার জন্য।

এই জাহাজটির উদ্ভোদনের অনুষ্ঠানটিকে সাফল্য মণ্ডিত করতে উপস্থিত ছিল, ভাইস এডমিরাল এম এস পাওয়ার, চীফ অফ স্টাফ, ইস্টার্ন ন্যাভাল কমান্ড , কোম্পানির তরফে চেয়ারম্যান জে. পি চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর, উমেশ চৌধুরী, টিটাগড় ওয়াগনস লিমিটেডের কর্তা ব্যাক্তিরা ও এমপি দীনেশ ত্রিবেদী, ব্যারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত, ব্যারাকপুর পৌরসভার পৌরপ্রধান, উত্তম দাস, টিটাগড় পৌরসভার পৌরপ্রধান, প্রশান্ত চৌধুরী সহ অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।


এই দিন ভাইস এডমিরাল এম এস পাওয়ার বলেন, নৌবাহিনীর প্রয়োজনে টাইটগড় ওয়াগনের এই অবদান কে আমি অভিনন্দন জানাচ্ছি। ডিজাইনার, ইঞ্জিনিয়ার, প্রযুক্তিবিদ, গুণমান কন্ট্রোলার এবং নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানের দলকে আমার অভিনন্দন জানানোর এই সুযোগটি গ্রহণ করতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করি। প্রথম 1000 টনের নৌযান আইএনএস বিক্রমাদিত্যকে সমর্থন করার জন্য সময়সূচির আগে তৈরি হয়েছে এই জাহাজটি।

ভাইস চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর উমেশ চৌধুরী এই উপলক্ষে বলেন,”আমরা এই মুহূর্তে আরবান রেলওয়ের পরিবহন ও প্রতিরক্ষা বিভাগের প্রধান কারিগর। ওয়াগন উৎপাদনকারী একটি প্রাইমারি কোম্পানি থেকে, আমরা স্থানীয় ট্রেন, মেট্রো কোচের পাশাপাশি যাত্রীবাহী ট্রেন এবং জাহাজনির্মাণের জন্য বৈচিত্রপূর্ণ বহুজাতিক কম্পোজিশন কোচ রূপান্তরিত করেছি। টিটাগড় ওয়াগনস একমাত্র ভারতীয় কোম্পানি, যেটি তার সম্পূর্ণ মালিকানাধীন সাবসিডিয়ারি টিটাগড় ফায়ারমা এস পি এ টেকনোলজি-এর মাধ্যমে ইতালিতে মেট্রো কোচ তৈরির জন্য প্রযুক্তিতে প্রবেশ করেছে। আমরা গতবছর জাহাজ নির্মাণের জন্য ভারতীয় নৌবাহিনী ও ন্যাশনাল ইন্সিটিউট অফ ওসিয়ান টেকনোলজির থেকে ৪ টি হাইলি কমপ্লেক্স ভেসেলস নির্মাণের জন্য অর্ডার পেয়েছিলাম।” তিনি আরও বলেন “এটি অত্যন্ত সন্তুষ্টিপূর্ণ মুহূর্ত যে, একটি কোম্পানির হিসাবে আমরা উল্লেখ যোগ্য ভাবে ভারতের নৌ নিরাপত্তা এবং গবেষণার বৃদ্ধি করতে সাহায্য করছি। টিটাগড় ওয়াগনস ইতিমধ্যে ছোট নৌকা নির্মাণের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কাছ থেকে নতুন আদেশ পেয়েছে এবং পরবর্তী ছয় থেকে আট মাসে এটির ফলাফল বের করা হবে। এই আদেশ ভারতীয় নৌবাহিনী, ভারতীয় কোস্ট গার্ড, ভারতের অভ্যন্তরীণ জলপথ কর্তৃপক্ষ, ভারতীয় জাহাজীকরণ কর্পোরেশন থেকে হতে পারে।”

২০১৭ সালের শুরুর দিকে এই জাহাজ গুলির টেন্ডার টিটাগড় ওয়াগনস কর্তৃক শুরু হয় বানিজ্যিক ব্যবসার মধ্যে কোম্পানির যাত্রার পথ। কোম্পানীর জাহাজ উৎপাদনের পরিচালক ১০০ কোটি ও ৭৫ কোটি টাকার আমানত চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ন্যাশনাল ইন্সিটিউট অফ ওসন টেকনোলজি (মিনিস্ট্রি অফ আর্থ সায়েন্স, গভর্নমেন্ট অফ ইন্ডিয়া)-র সাথে। টিটাগড় ওয়াগনস কুলপি তে জাহাজ নির্মাণের পরবর্তী পর্যায়ে লেআউট গুলি নির্মাণ ও স্থাপনের পরিকল্পনা করছে। বিশ্বব্যাপী, জাহাজ নির্মাণের বাজার পুনরুজ্জীবিত হওয়ার অপেক্ষা করছে, কোম্পানির বিনিয়োগ ম্যাক্রো-অর্থনৈতিক অবস্থার উপর নির্ভর করবে। ভারত সরকারের “মেক ইন ইন্ডিয়া” দৃষ্টিভঙ্গির সাথে সঙ্গতি রেখে, টিটাগড় ওয়াগনস সর্বদাই তার একাধিক ব্যবসার মাধ্যমে প্রযুক্তি গত উদ্ভাবনের মাধ্যমে সক্রিয় হয়ে উঠবে এবং এখন জাহাজ নির্মাণের নতুন নকশা তৈরি করা হচ্ছে।

১৭ই মে-র এই নতুন ১০০০ টনের বার্জের উদ্ভোদন আগামি দিনে “মেক ইন ইন্ডিয়া”-র লক্ষের দিকে আরও একটি বড় উৎসাহ প্রদান করতে চলেছে তা বলাই বাহুল্য।

সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Comment