শান্তির ভোট জঙ্গলমহলে আশাবাদী শাসক, বিরোধী সমস্ত রাজনৈতীক দল

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচনে জঙ্গলমহলের অধিকাংশ আসনে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল। ঝাড়গ্রাম জেলায় কোনও পুনঃ নির্বাচন হয়নি। তেমন কোনও অশান্তির খবরও নেই এই জেলায়। শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট পর্ব মিটেছে গোটা জেলায়। তাই আজ ভোট গননার আগের মুহুর্ত পর্যন্ত প্রত্যেকটা রাজনৈতিক দলের নেতারাই নিজেদের জয়ী নিয়ে আশাবাদী রয়েছেন। শাসক দল ভোটের আগে থেকেই মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নকে হাতিয়ার করে ভোট প্রচারে নেমেছিলেন। তাই শাসক দলের দাবি গোটা জঙ্গলমহলে দু হাত ভরে উজাড় করে উন্নয়নে ভরে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এলাকার রাস্তা, পানীয় জল, কন্যাশ্রী, শিক্ষাশ্রী, মিশন বাংলা, গীতাঞ্জলী আবাস যোজনা, দু টাকা কেজি চাল সহ সরকারী বিভিন্ন প্রকল্প গুলির সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দেওয়া পেয়েছে জঙ্গলমহলবাসী। তাই শাসক দলের দাবি জন্ম থেকে মৃত্যু এই সরকার মানুষের পাশে রয়েছে। আর সেদিকে থেকেই শাসক দলের ভরসা জঙ্গলমহলের আমজনতা তাদের পক্ষে রায় দেবে।

অন্যদিকে পঞ্চায়েত ভোটের আগে থেকেই তৃণমূলের প্রন্থা নিয়ে একই ভোট প্রচারে হাতিয়ার করেছিল বিরোধী দল বিজেপি। বিজেপির পক্ষ থেকেও দাবি করা হয় যে কেন্দ্রীয় সরকার যে ভাবে গোটা পশ্চিমবাংলা জুড়ে উন্নয়ন করেছে তাতে বাংলার মানুষ ভরসা করেছে নরেন্দ্র মোদীর সরকারের। বিজেপির দাবি কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্প গুলি রাজ্য সরকার নাম পাল্টে তাদের নামে চালানোর চেষ্টা করেছে। কিন্তু মানুষ জানে প্রধান মন্ত্রী আবাস যোজনা, প্রধানমন্ত্রী গ্রামীন সড়ক যোজনা, স্বচ্ছ ভারত মিশন, সহ একাধিক এই প্রকল্প গুলি কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্প বলে। তাই জনতা সব দিক বিবেচনা করে বিজেপির পক্ষে রায় দিয়েছে।

এবিষয়ে ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি সুকুমার হাঁসদা বলেন, আমার বিশ্বাস জঙ্গলমহলের মানুষ উন্নয়নের পক্ষে রায় দিয়েছেন।জঙ্গলমহলের সমস্ত আসনে আমরা জয়লাভ করব।শুধু ঘোষনার অপেক্ষা। বিজেপি কোথাও কোথাও সন্ত্রাস সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছে আমরা তা প্রতিরোধ করেছি। উন্নয়নের দিক গুলি আমরা মানুষের কাছে তুলে ধরেছি।

ঝাড়গ্রাম জেলা যুব তৃণমূলের সভাপতি দেবনাথ হাঁসদা বলেন, জঙ্গলমহলের বাড়িতে বাড়িতে উন্নয়ন পৌছে দিয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রত্যেকটা মানুষ এই সরকারের সুযোগ পেয়েছে।উন্নয়ন দেখেই জনতা আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছে। অন্যদিকে বিজেপির জেলা সভাপতি সুখময় শতপথী বলেন,আমরা সেইদিনেই জিতে গেছি যেদিন শাসক দলের চোখ রাঙানি কে উপেক্ষা করে জঙ্গলমহলের সমস্ত শিটে প্রার্থী দিয়েছি।আর ফল ঘোষনা হলে আমরাই জিতব।

সম্পর্কিত সংবাদ