বৃদ্ধ বাবা-মাকে অবহেলার শাস্তি ৬ মাসের হাজতবাস, আইন সংশোধনের সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের

Share Bengal Today's News
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গল টুডেঃ

দাম্পত্যে পূর্ণতা আনে সন্তান। আদরের ছেলে বা মেয়েটিকে বড় করে তুলতে নিজেদের কত ছোট ছোট সুখ, ভাললাগাকে যে বির্সজন দেন বাবা-মায়েরা! চাওয়া তো একটাই, ‘সন্তান যেন থাকে দুধে-ভাতে’। কিন্তু, বৃদ্ধ বয়সে সেই সন্তানই আবার বাবা-মাকে অবহেলা করে দূরে ঠেলে দেয়। ‘গুণধর’ সন্তানদের শায়েস্তা করতে আইন আরও কড়া করল কেন্দ্র সরকার। এবার আর ৩ মাস নয়, বৃদ্ধ বাবা-মাকে অবহেলার শাস্তি ৬ মাসের জেল।

বিপুল জনসংখ্যার এই দেশে প্রবীণ নাগরিকদের সংখ্যাও কিন্তু কম নয়। পড়াশোনার শেষে একমাত্র সন্তান কর্মসূত্রে থাকে ভিনরাজ্যে কিংবা ভিন দেশে। বাবা-মার কথা তখন আর খেয়াল থাকে না। চরম অবহেলায় দিন কাটে বৃদ্ধ দম্পতির। এমনকি সম্পত্তি হাতাতে বয়সের ভারে ঝুঁকে পড়া, অশক্ত বাবা-মাকে সন্তানের মারধরের ঘটনা বিরল নয়। বৃদ্ধ বাবা-মায়ের লাঞ্ছনা, অপমান সমাজের চোখে সন্তানকে তো অপরাধী করে তোলেই। আইন তাঁদের ছেড়ে কথা বলে না।

২০০৭ সালে পাস হয়েছিল ‘মেনটেন্যান্স অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার অফ পেরেন্টস অ্যান্ড সিনিয়র সিটিজেনস অ্যাক্ট’। কেন্দ্রে তখন কংগ্রেস সরকার। প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। সেই আইন অনুসারে, বৃদ্ধ বাবা-মাকে অবহেলা করলে, সন্তানকে জেলে যেতে হবে। শাস্তির মেয়াদ ছিল ৩ মাস। সেই আইনটিকে সংশোধন করতে চাইছে মোদি সরকারের সামাজিক ন্যায় বিচার মন্ত্রক। আর এই নয়া আইনে সন্তানের ৬ মাস পর্যন্ত জেল হবে।

শুধু তাই নয়, আইনের পরিসর আরও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার। এতদিন শুধুমাত্র ছেলে কিংবা মেয়ে এবং নাতি-নাতনিদের ‘মেনটেন্যান্স অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার অফ পেরেন্টস অ্যান্ড সিনিয়র সিটিজেনস অ্যাক্ট’-এ সাজা দেওয়া যেত। তবে সংশোধিত আইনে বৃদ্ধ বাবা-মায়ে দেখভাল করতে দায়বদ্ধ থাকবেন দত্তক সন্তান, সৎ ছেলে-মেয়ে, এমনকি জামাই ও পুত্রবধূও।

সূত্রের খবর, সংশোধিত আইনে বৃদ্ধ বাবা-মাকে দেওয়া মাসোহারার পরিমাণ বাড়তে পারে। খসড়া বলা হয়েছে, বড় দরের চাকুরি সন্তানকে বাবা-মাকে আরও বেশি টাকা দিতে বাধ্য থাকবেন। কোনওরকম অবহেলার শিকার হলে মেনটেন্যান্স ট্রাইবুনালে সন্তানের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে পারবেন বৃদ্ধ বাবা-মা।

সম্পর্কিত সংবাদ