পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি পুলিশ এডমিনিস্ট্রেট সেলের প্রতিনিধি দল ঝাড়গ্রামে

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি পুলিশ এডমিনিস্ট্রেট সেলের প্রতিনিধি দল ঝাড়গ্রামে

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

ঝাড়গ্রাম জেলায় নকল ব্যালট পেপার ছাপা হচ্ছে এমনি খবর রয়েছে বিজেপির কাছে। জেলার বিভিন্ন থানা এলাকায় লালগড়, জাম্বনী, ঝাড়গ্রাম থানার পুলিশেরা আমাদের কর্মীদেরকে কোনও সহযোগিতা করছে না। পুলিশ আমাদের কর্মীদের উপর চাপ সৃষ্টি করছে। সুশৃঙ্খল ও নিরপেক্ষ ভোটের দাবিতে মঙ্গলবার ঝাড়গ্রামের জেলাশাসক আর অর্জুন ও জেলা পুলিশ সুপার অমিত কুমার ভরত রাঠোর এর সাথে দেখা করেন বিজেপির এক প্রতিনিধি দল। এদিন বিজেপি পরিচালিত পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি পুলিশ এডমিনিস্ট্রেশন সেলের প্রতিনিধিরা জেলা শাসক ও পুলিশ সুপারের সাথে দেখা করে তাদের অভিযোগের কথা তুলে ধরেন। বিজেপির এই প্রতিনিধি দলে ছিলেন দলের কনভেনার বেত কুমার মুখার্জী, রাজ্যের প্রাক্তন ডিজি আর কে হুন্ডা, প্রাক্তন ডি আই জি সুভাষ অধিকারীদের নেতৃত্বে মোট পাঁচজনের একটি প্রতিনিধি দল। এদিন বিজেপির প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে আশাঙ্কা প্রকাশ করে বলেন নকল ব্যালট পেপার ছাপা হতে পারে। সেদিকে প্রশাসনকে নজর রাখতে হবে।

পরে জেলা শাসকের সাথে দেখে করে বেরিয়ে আসার সময় সাংবাদ মাধ্যমের সামনে বিজেপি সেলের প্রতিনিধিরা বলেন, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির এখনো অত ক্ষমতা নেই যে ক্ষমতাশীল দলকে মারবে। তাদের আরও অভিযোগ বিজেপির প্রার্থীদের বাড়ী বাড়ী গিয়ে তাদের প্রার্থীদেরকে প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করার জন্য ধমকানো হচ্ছে। আমরা স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ভাবে ভোট চাই। তাতে যে দল জিততে পারে। লালগড়, ঝাড়গ্রাম, জাম্বনীর আইসিরা সরাসরি লোক পাঠিয়ে আমাদেরকে ভোটে লড়াই করতে নিষেধ করছেন। তৃণমূল আমাদের কর্মীদেরকে বন্ধুকের ভয় দেখাচ্ছে। কর্মীরা মার খাওয়ার পরে তাদেরকে অভিযোগ করতে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। তখন আমাদের কর্মীরা ই মেল বা স্পিড পোস্ট এর মাধ্যমে অভিযোগ করছেন। কিন্তু তা গ্রহন করছেন পুলিশ। আমরা লালগড়, ঝাড়গ্রাম, জাম্বনীতে সব থেকে বেশি অভিযোগ পেয়েছি। সেখানে পুলিশ আমাদের কোনও অভিযোগ নিতেই চাইছে না। এই বিষয় নিয়েও জেলা শাসককে জানিয়েছি। আমাদের কর্মীরা মার খাচ্ছে উল্টে আমাদের কর্মীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

রাজ্যের প্রাক্তন ডিজি আর কে হুন্ডা বলেন, সিপিএমের আমলে গণ্ডগোল হত কিন্তু তার মধ্যে একটা সীমা ছিল। এখন সেটা নেই। এখন দেখছি একটা রাজনৈতিক দল পুলিশকে, থানাকে পরিচালনা করছে। এবিষয়ে জেলাশাসক আর অর্জুন জানান, ওনারা এসেছিলেন অভিযোগ শুনেছি, অভিযোগ ক্ষতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবো। জেলা পুলিশ সুপার অমিত কুমার ভরত রাঠোর বলেন, ওনারা এসেছিলেন কথা শুনেছি,অভিযোগের সমস্ত দিক ক্ষতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

You May Share This

Leave a Reply