ভাগাড় কান্ডের পর, অভিযান ঝাড়গ্রাম পুরসভার

ভাগাড় কান্ডের পর, অভিযান ঝাড়গ্রাম পুরসভার

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

ভাগাড় কান্ডের পর রাজ্যের বিভিন্ন জেলা গুলিতে বেশ কয়েকদিন ধরে অভিযান চলছে। ৫ই মে ঝাড়গ্রাম শহরের বিভিন্ন কসাই খানা, মুরগি মাংসের দোকান, হোটেল, বিরিয়ানির দোকানে হানা দেয় পুরসভার খাদ্য দফতরের আধিকারিকেরা। তবে খারাপ কিছু না পেলেও বেশ কিছু দোকানে ফ্রিজিং করে রাখা মাংস উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

পুরসভা সুত্রে জানা যায়, ফ্রিজিং করে রাখা মাংস গুলিকে পরীক্ষা করে দেখা হবে। পরীক্ষার করে দেখার পর দোকান গুলির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে। এদিন সকাল সকাল ঝাড়গ্রাম পুরসভার খাদ্য দফতরের আধিকারিক সিদ্ধার্থ দুবে ও কল্লোল তপাদারের নেতৃত্বে পুরসভার ৬ জনের একটি টিম শহরের বিভিন্ন খাসি মাংসের দোকান, হোটেল, বিরিয়ানির দোকানে হানা দেয়।
সিদ্ধার্থ বাবু বলেন, ভাগাড় কান্ডের পর মানুষ যথেষ্ট আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। মানুষ যাতে সঠিক খারাব পাই তার জন্য পুরসভার এই অভিযান। শহরের বেশ কয়েকটি দোকান থেকে ফ্রিজিং করে রাখা মাংসের নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে আসা হয়েছে পরীক্ষার জন্য। পুরসভার এই অভিযান আগামী দিনেও জারি থাকবে।

উল্লেখ্য, ভাগাড় কান্ডের ঘটনা সামনে আসার পর ইতিমধ্যে ঝাড়গ্রাম শহরের বেশকিছু মাংসের দোকান প্রায় বন্ধের মুখে। মাংসের চাহিদা কমার পাশাপাশি, বিভিন্ন রেস্টুরেন্ট গুলিতে মাংসের তৈরী আইটেমের বিক্রিও যথেষ্ট কমেছে।

এ ব্যাপারে ঝাড়গ্রাম পুরসভার চেয়ারম্যান দূর্গেশ মল্লদেব বলেন, এদিন পুরসভার খাদ্য বিভাগ শহরের একাধিক জায়গায় অভিযান চালিয়ে ফ্রিজিং করা মাংস উদ্ধার করেছে। সেগুলি পরীক্ষা করে দেখে তারপর দোকান গুলির বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। মানুষ যাতে ভালো খাবার পায় তার জন্য এই অভিযান।

You May Share This
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.