মনোনয়ন পত্রে সমর্থকের নামে ভুয়ো টিপ সই দেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে

মনোনয়ন পত্রে সমর্থকের নামে ভুয়ো টিপ সই দেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

ভুয়ো টিপ সই দিয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দেবার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। ঝাড়গ্রাম ব্লকের পাটাশিমূল অঞ্চলের পাথরা গ্রামের তৃণমূল সমর্থক স্বপন খিলাড়ি ২৫শে এপ্রিল তার অভিযোগ দায়ের করেন। সোমবার তিনি বাইরে কাজে গিয়েছিলেন। মনোনয়ন পত্র জমা করার দিন তিনি গ্রামে ছিলেন না। অথচ পাটাশিমূল গ্রামপঞ্চায়েতের এক নম্বর বুথের বিজেপি প্রার্থীর সমর্থক হিসেবে তার নামে অন্য কাউকে দিয়ে টিপ সই দিয়েছে। অথচ তিনি সই করতে জানেন। বিষয়টি জানতে পেরে তিনি এদিন ঝাড়গ্রাম ব্লকের বিডিও কাছে লিখিত অভিযোগ পত্র দিয়ে দাবি করেছে্ন ওই বুথের বিজেপি প্রার্থী অনীল সোরেনের মনোনয়ন পত্র বাতিল করা হোক। তৃণমূলের অভিযোগ বিজেপি এই ভাবে ঝাড়গ্রাম জেলার বিভিন্ন আসনে ভুয়ো সমর্থকের নামে সই করিয়ে প্রার্থী দিয়েছে। তাই বিজেপি জেলায় এত আসনে প্রার্থী দিতে পেরেছে।

পাটাশিমূল এলাকার তৃণমূল নেতা শ্যামল খিলাড়ি সংবাদ মাধ্যমের সামনে জানিয়েছেন, “বিজেপি প্রার্থী তৃণমূল কর্মীর নাম ভাঙিয়ে ভুয়ো সই করে মনোনয়ন করেছে। তৃণমূলের কর্মী মনোনয়নের দিন এলাকাতেই ছিলেন না। বিজেপি এই ভাবে ভুয়ো সমর্থকের নাম দিয়ে জেলার বিভিন্ন জায়গায় মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছ।”

পটাশিমূল অঞ্চলের পাথরা গ্রামের বাসিন্দা স্বপন খিলাড়ি এদিন সংবাদ মাধ্যমের সামনে অভিযোগ করেছেন, “আমি কাজে বাইরে গিয়েছিলাম। আমি একজন তৃণমূলের সমর্থক। আমি জানতেই পারিনি আমাকে বিজেপি প্রার্থী অনিল সোরেন সমর্থক করা হয়েছে। এমনকি আমার নামে টিপ সই দেওয়া হয়েছে।আমি বিষয়টি জানতে পেরে প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি। ওই প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হোক।”

আর এই অভিযোগ প্রসঙ্গে ঝাড়গ্রামের বিডিও সুদর্শন চৌধুরী বলেন, “নির্বাচন কমিশনের নিয়ম মেনেই ওই প্রার্থী মনোনয়ন করেছেন। স্কুটিনিতেও কমিশনের নিয়মমাফিক পদ্ধিত অনুসরনের পর এই প্রার্থীর মনোনয়ন আইন মাফিক গৃহিত হয়েছে। আর স্কুটিনির সময় প্রার্থী উপস্থিত থাকলেও অভিযোগকারী উপস্থিত ছিলেন না। আর অভিযোগ করতে হলে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে করতে হয়। যিনি অভিযোগ করছেন তিনি সময়মতো আসেননি। তাই আইন অনুযায়ী অভিযোগকারীর অভিযোগ ভিত্তিহীন।

এছাড়া ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, “এটাই হচ্ছে বিজেপির আসল চরিত্র। জেলা দেখলে এরকম আরো পাওয়া যাবে। প্রার্থী পায়নি ভুয়ো সমর্থকের নাম দিয়েছে। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি।”

অপরদিকে ঝাড়গ্রাম জেলা বিজেপির সভাপতি সুখময় শতপথি বলেন, “শাসক দল ঝাড়গ্রাম জেলা জুড়ে বিজেপির মনোনয়ন দেখে ভয় পেয়েছে। তাই এখন তৃণমূল ভয় দেখিয়ে,চাপ সৃষ্টি করে মনোনয়ন পত্র যাতে বাতিল করা যায় তার জন্য এইসব করছে। চক্রান্ত পরিস্কার বোঝা যাচ্ছে”।

You May Share This
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.