ভোটের প্রচারে এসে “মিশন নির্মল বাংলা” নিয়ে কটাক্ষ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শান্তনু বিশ্বাস, বনগাঁ:

২২শে এপ্রিল বনগাঁয় আয়োজিত হয় বিজেপির কর্মী সভা। এই সভায় উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষ। মূলত এদিন আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচন উপলক্ষে বনগাঁর একাধিক এলাকায় ভোট প্রচারে আসেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। এদিন গোপাল নগর থানা এলাকার দিঘাড়ি, আকাইপুর, ও গাইঘাটার জুমায় সভা করে বিজেপি প্রার্থীদের জন্য নির্বাচনি প্রচার সারলেন দিলিপ ঘোষ । আর এই সভায় বসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, এখন রাজ্য বাসীকে শৌচক্রীয়া করতে গেলেও মুখ্যমন্ত্রীর নাম নিতে হচ্ছে এটা আমাদের দূর্ভাগ্য। কারন তৃনমূল সরকার কত নিচে নামতে পারে এটা তারই উদাহরন।

তিনি আরো বলেন, “এই সরকারের শাসনে ভোটের মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার জন্য বিডিও অফিসের কোনও প্রয়োজন নেই ৷ থানাতে এখন মনোনয়নের ব্যবস্থা করতে হবে। কারণ পুলিশের কোনও মেরুদন্ড নেই। পুলিশ কে সাথে নিয়ে তৃনমূল এখন যা খুশি তাই করছে। বিরোধী দের রাজ্যে এখন কোনও নিরাপত্তা নেই । আর তার এই প্রসঙ্গে রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে শাসক দলের হাতে বিরোধীদের আক্রান্ত হওয়ার প্রসঙ্গও টেনে আনেন তিনি। পাশাপাশি বলেন, পুলিশ তৃনমূলের হয়ে কাজ করছে। তৃনমূলের অবস্থা এখন মহাভারতের কৌরবদের মতো। রাজ্যে এখন দাদার চাল আর দিদির নাম চলছে। কারন দু টাকায় চাল দিচ্ছে মোদী আর নাম হচ্ছে মমতা দিদির। কেন্দ্রীয় সরকারের সব প্রকল্পই এখন তৃনমূল নিজেদের নামে চালাচ্ছে বলেও তিনি কটাক্ষ করেন।

শৌচালয়ের সামনে লেখা মূখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরনায় ” মিশন নির্মল বাংলা”। এদিন বনগাঁ একাধিক এলাকায় ভোট প্রচারে এসে শৌচালয় প্রসঙ্গ ও টেনে আনলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন রনংদেহী স্বভাব সিদ্ধ ভঙ্গিতে বিজেপি সভাপতি একেবারে চাঁচা ছোলা ভাষায় আক্রমন করেন তৃনমূল কংগ্রেস কে। তিনি বলেন এখন রাজ্য বাসীকে শৌচক্রীয়া কর তে গেলেও মুখ্যমন্ত্রীর নাম নিতে হচ্ছে এটা আমাদের দূর্ভাগ্য কারন তৃনমূল সরকার কত নিচে নামতে পারে এটা তারই উদাহরন।

 এই সরকারের শাসনে ভোটের মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার জন্য বিডিও অফিসের কোনও প্রয়োজন নেই ৷ থানাতে এখন মনো নয়নের ব্যাবস্থা করতে হবে। কারণ পুলিশের কোনও মেরুদন্ড নেই। পুলিশ কে সাথে নিয়ে তৃনমূল এখন যা খুশি তাই করছে । বিরোধী দের রাজ্যে এখন কোনও নিরাপত্তা নেই। এ প্রসঙ্গে রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে শাসক দলের হাতে বিরোধীদের আক্রান্ত হওয়ার প্রসঙ্গও টেনে আনেন তিনি। পুলিশ তৃনমূলের হয়ে কাজ করছে। তৃনমূলের অবস্থা এখন মহাভারতের কৌরব দের মতো । রাজ্যে এখন দাদার চাল আর দিদির নাম চলছে । কারন দু টাকায় চাল দিচ্ছে মোদী আর নাম হচ্ছে মমতা দিদির । কেন্দ্রীয় সরকারের সব প্রকল্পই এখন তৃনমূল নিজেদের নামে চালাচ্ছে ।

সম্পর্কিত সংবাদ