বাংলাদেশে কোটা পদ্ধতি কারও একার পক্ষেই বাতিল করা সম্ভব নয়-এরশাদ

Share Bengal Today's News
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বেঙ্গলটুডে প্রতিনিধি, ঢাকা:

বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ বলেছেন, দেশের সংবিধানে আছে কোটা পদ্ধতি। সে কারণে কোটা পদ্ধতি থাকতেই হবে। তবে এটা যৌক্তিক পর্যায়ে নামিয়ে আনা জরুরি। এটা কারও একার পক্ষেই বাতিল করা সম্ভব না। তিনি ১৪ই এপ্রিল দুপুরে রংপুর সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন। কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে যৌক্তিক মনে করে তিনি বলেন, অব্যাহত আন্দোলনের কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনের দুঃখে কোটা পদ্ধতি বাতিল করেছেন। আমার মনে হয় সবগুলো কোটা পদ্ধতি বাতিল করতে তিনি নিজেও চান না। আগে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য যে ৩০ ভাগ কোটা ছিলো এটা ঠিক ছিল না। মাত্র ২ লাখ মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য এত কোটার প্রয়োজন ছিল না। এটা অযৌক্তিক ছিল। ফলে কোটা ঠিক করে দিলেই চলবে। তবে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য কিছু হলেও কোটা পদ্ধতি থাকা উচিত।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি, আপনি আমাদের অংশীদার করে নেন। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে ৭০টি আসন দিন, আর ১০ থেকে ১২টি মন্ত্রণালয় দেন। আমরা আওয়ামী লীগের সঙ্গে শরিক হয়ে থাকতে চাই। আর আমাদের কথা মতো আসন আর মন্ত্রণালয় না দিলে আমরা এককভাবে ৩’শ আসনেই প্রার্থী দেবো।

এরশাদ বলেন, বিএনপির অবস্থা ভালো না। তারা নির্বাচনে আসুক না আসুক আমরা নির্বাচনে অংশ নেবো। জাপা চেয়ারম্যান এরশাদ আরও বলেন, রংপুরে জাতীয় পার্টির প্রতি আবারও গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এর প্রভাব সারা দেশে পড়বে। আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসবে। এর আগে তিনি সার্কিট হাউজে এসে পৌঁছালে দলের নেতা কর্মীগন তাকে স্বাগত জানান।

এ সময় দলের মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, জাপা নেতা সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিয়ার রহমান রাঙ্গা, রংপুর সিটি মেয়র ও মহানগর জাপা সভাপতি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ১৫ই এপ্রিল স্থানীয় পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে জেলা জাতীয় পার্টির সম্মেলনে তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন।

সম্পর্কিত সংবাদ