তবে কি পদ্মাবতীর মতোই হাল হতে চলেছে মণিকর্ণিকার?

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Webdesk, Bengal Today:

সঞ্জয়লীলা বনশালীর বহু প্রতীক্ষিত ছবি ‘পদ্মাবত’ মুক্তি নিয়ে করণী সেনার অগ্নিপরিক্ষার মুখে পরতে হয় বহুবার। অবশেষে সঞ্জয় লীলা বনশালী সেই অগ্নিপরীক্ষায় উতরে যায়। তবে তাঁর আগে গোটা দেশে সাড়া ফেলে দেয় ‘পদ্মাবত’। সম্প্রতি পদ্মাবত ঘিরে সেই উত্তাল পরিস্থিতি শান্ত হতে না হতেই ফের বলিউডের আর একটি সিনেমা ঘিরে পারদ চড়তে শুরু করল। রাজস্থানের ব্রাহ্মণ সংগঠনের রোষের মুখে পড়ল কঙ্গনা রানাওয়াত অভিনীত ‘মণিকর্ণিকা’। অর্থাৎ কঙ্গনা রানাওয়াত অভিনীত ‘মণিকর্ণিকা’ ছবির একটি গানের দৃশ্যকে ঘিরে এই ছবিতে ঝাঁসির রানির সাথে এক ব্রিটিশ ব্যক্তির প্রেমের দৃশ্য দেখানো হয়েছে, এই অভিযোগে সরব হয়ে উঠেছে রাজস্থানের একটি ব্রাহ্মণ সংগঠন।

মূলত কৃষ পরিচালিত ‘মণিকর্ণিকা’-র গল্প সাজানো হয়েছে ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক ব্রিটিশ লেখিকার বইয়ের তথ্যের আধারে। বইয়ে লেখিকা জয়শ্রী মিশ্র রানি লক্ষ্মীবাঈয়ের সাথে ব্রিটিশ কর্মচারি রবার্ট এলিসের প্রেমের সম্পর্ককে দেখিয়েছেন। বাস্তবে যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবি সর্ব ব্রাহ্মণ মহাসভার।

উল্লেখ্য বইটি ২০০৮ সালে উত্তরপ্রদেশ সরকার ব্যানড করে। সেই ‘ব্যানড’ করা বইয়ের ওপর ভিত্তি করে কি করে ‘মণিকর্ণিকা’র চিত্রনাট্য লেখা হল? এই প্রশ্ন তুলেছেন সর্ব ব্রাহ্মণ মহাসভার সদস্যরা। কারন বীরাঙ্গনা ঝাঁসির রানি শুধু ব্রাহ্মণ সম্প্রদায় নয়, দেশেরও গর্ব। তাঁর চরিত্রকে কালিমালিপ্ত করলে তা কিছুতেই মেনে নেওয়া হবে না। প্রয়োজনে ‘মণিকর্ণিকা’-র শুটিং বন্ধ করে দেওয়া হবে বলেও ছবি নির্মাতাদের আগাম সতর্ক করে দিয়েছে রাজস্থানের ব্রাহ্মণ সংগঠন।

এমনকি এর দরুন ‘মণিকর্ণিকা’-র চিত্রনাট্য দেখতে চেয়ে জানুয়ারি মাসে চিঠিও পাঠানো হয়। বেশ কিছুদিন পার হয়ে গেলেও কোনও জবাব আসেনি। যা নিয়ে রীতিমত ক্ষোভে ফুঁসছেন রাজস্থানের ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের নেতৃস্থানীয়রা। এক্ষেত্রেও তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছে করণী সেনাও। এক্ষেত্রে তাঁদের দাবি না মানলে ‘পদ্মাবত’-এর মতই দুর্ভোগ পোহাতে হবে ‘মণিকর্ণিকা’কেও, সে ব্যাপারে আগে ভাগেই ছবির প্রযোজনা সংস্থাকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে সর্ব ব্রাহ্মণ মহাসভা।

সম্পর্কিত সংবাদ