জামাইপাড়াতে বিদ্যুৎ সংযোগ, নেই পানীয় জলের ব্যবস্থাও

Share Bengal Today's News
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

জামাইপাড়ার গ্রামীন এলাকায় পানীয় জলের সঙ্কট মেটাতে রাজ্য সরকার একাধিক পাম্প বসাচ্ছে, বিভিন্ন জল প্রকল্পের কাজ করেছে। সেখানে আদিবাসী অধ্যুষিত একটি পাড়া থেকে জলের পাম্পই তুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠল পঞ্চায়েত সমিতির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঝাড়গ্রাম জেলার জাম্বনী ব্লকের জামবনি ব্লকের চিল্কিগড় গ্রাম পঞ্চায়েতের জামাই পাড়া এলাকার। এই ঘটনায় ব্যাপক ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে শাসক দলের বিরুদ্ধে। যার ফলে পঞ্চায়েত ভোটের আগে যথেষ্ট অস্বস্তিতে পড়েছে ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস।

এদিকে গ্রামে নেই কোন বিদ্যুৎ সংযোগ। আর সেই কারনে গ্রামে পানীয় জল সঙ্কট মেটাতে ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে বসানো হয়েছিল সোলার চালিত একটি পাম্প সেট। কিন্তু সম্প্রতি সেই পাম্প টি তুলে নিয়ে অন্যত্র পিকনিক স্পটে বসানো হয়েছে বলে অভিযোগ। আর এর ফলে গ্রামের মানুষেরা আবারও তীব্র জল কষ্টের সম্মুখিন হয়েছেন। তারা এক প্রকার বাধ্য হয়েই নদীর জল পান করছেন। এই ঘটনার জন্য দায়ি করেছেন পঞ্চায়েত সমিতিকে। শিশু সহ আদিবাসী পাড়ার সকলেই পানীয় জল সহ দৈনন্দিন সমস্ত কাজের জন্য এক মাত্র ভরসা করছেন নদীর জলের উপর। যদিও এই বিষয়ে কোন খবর নেই স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধানের কাছে। জামবনির এই জামাই পাড়া এলাকাটি একেবারেই আদিবাসী অধ্যুষিত। এলাকায় নেই কোন বিদ্যুৎ সংযোগ। পানীয় জলের ভরসা বলতে সংলগ্ন ডুলুং নদীর জল। শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষ বারো মাস পেটের অসুখ সহ অন্যান্য রোগের আশঙ্কা থাকা সত্ত্বেও বাসিন্দারা নদী জল খেতে বাধ্য হন। এই সমস্যা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য জামবনি ব্লক প্রশাসনের উদ্যোগে চিল্কিগড় কনকদূর্গা মন্দিরের পিছনে জামাইমারা পাড়ায় একটি সোলার পাম্প বসানো হয়েছিল।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সম্প্রতি জামবনি পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির উদ্যোগে পাম্পটি তুলে নিয়ে অনেক দূরে চিল্কিগড়ে একটি পিকনিক স্পটে বসানো হয়েছে। আর তাই এলাকাবাসী আবারও জল সঙ্কটে পড়েছেন। স্থানীয় বাসিন্দারা নিজেদের চেষ্টায় একটি হ্যান্ড পাম্প বসালেও সেই পাম্প থেকে ঘোলা জল বের হয়। আর তাই তারা বাধ্য হচ্ছেন নদীর তীরে বালি খুড়ে জল তুলে পান করতে। স্থানীয় বাসিন্দা কুনারাম হাঁসদা, সুন্দর হেমরম, জগন্নাথ টুডু, ফুলমনি টুডুরা বলেন আমাদের পাড়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ নেই। আমাদের পাড়ার সোলার পাম্পটা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তুলে নিয়ে গিয়েছে। আমরা জল খেতে পারছি না। একটা হ্যান্ড পাম্প ব্যক্তিগত উদ্যোগে বসানো হলেও ভালো জল বের হচ্ছেনা। আমরা বাধ্য হচ্ছি নদীর জল খেতে। আমরা বুঝতে পারছিনা কেন আমাদের পানীয় জল থেকে বঞ্চিত করে পাম্প তুলে নেওয়া হল।

এই বিষয়ে চিল্কিগড় গ্রামপঞ্চায়েত প্রধান ময়না হেমরম সংবাদ মাধ্যমের কাছে বলেন, ওই পাড়া থেকে পাম্প যে তুলে নেওয়া হয়েছে সেই তথ্য জানি না।তবে পাম্প লাগানো হয়েছিল সেটা জানতাম ওই এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ নেই বিষয়টি দেখব। এলাকায় গিয়ে সরে জমিনে খবর নেব।

এছাড়া এই বিষয়ে জামবনি পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সমীর ধলের সাথে ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নির্বাচন সংক্রান্ত মিটিং এ আছি বলে ফোন কেটে দেন। জামবনি ব্লকের বিডিও মহম্মদ আলিম আনসারিকে ফোন করা হলে তিনিও মিটিংএ ব্যাস্ত আছেন বলে ফোন কাটেন।

সম্পর্কিত সংবাদ