Monday, September 26, 2022
spot_img

দুই চিকিৎসকের অলিখিত ছুটির জেরে সমস্যায় দুই সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের রোগীরা

সন্দীপ ঘোষ, ঝাড়গ্রাম:

ঝাড়গ্রাম জেলার দুই চিকিৎসকের অলিখিত ছুটির জেরে দুই সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে চরম সমস্যায় পড়ছেন জঙ্গলমহলের প্রত্যন্ত এলাকা থেকে আসা রোগীরা।

সুত্রের খবর, ঝাড়গ্রাম জেলার দুই সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের দুই চিকিৎসক অর্থাৎ ঝাড়গ্রাম জেলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের মেডিক্যাল বিভাগের চিকিৎসক ডঃ অরুন সামন্ত ও গোপীবল্লপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের রেডিওলোজী বিভাগের চিকিৎসক ডঃ তন্ময় সাহু দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে আসছেন না। কেনও তারা হাসপাতালে আসছেন না সে বিষয়ে জানতে চেয়ে তাদেরকে চিঠি পাঠান জেলা স্বাস্থ্য দফতর। কিন্তু এখনো সেই চিঠির কোনও উত্তর আসেনি। অপরদিকে চিঠির কোনও উত্তর না পেয়ে পুরো বিষয়টি লিখিত ভাবে জেলা স্বাস্থ্য দফতর রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরে জানান।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সুত্রে খবর, ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতাল এবং ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে এমনিতেই চিকিৎসক যথেষ্টই কম রয়েছে। ঝাড়গ্রাম জেলা ও সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে পুরো জেলা সহ লাগোয়া জেলা এবং পার্শ্ববর্তী ঝাড়খন্ড ও ওড়িশা রাজ্য থেকেও চিকিৎসা করাতে আসেন মানুষজন। এছাড়াও পাশের জেলা বাঁকুড়ার অনেক ব্লকের মানুষ নির্ভর করেন ঝাড়গ্রাম হাসপাতালের চিকিৎসা পরিষেবার উপর। ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের আউটডোরে দৈনিক প্রায় ২০০০রোগী চিকিৎসার জন্য আসেন। জেলা হাসপাতাল এবং সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে বিভিন্ন বিভাগে শয্যা রয়েছে সাড়ে ৪০০রোগী। কিন্তু রোগী ভর্তি থাকে ৫০০-রও বেশি। আর সেই জায়গায় জেলার এই হাসপাতালে চিকিৎসক রয়েছে মাত্র ৮১ জন বলে জানা গিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে। এছাড়া জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে আরো জানা যায়, গত বছর ঝাড়গ্রাম জেলার নয়াগ্রাম, গোপীবল্লভপুর এবং ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের জন্য ৫৪ জন চিকিৎসকের নাম তালিকা ভুক্ত হয়েছিল। কিন্তু এর মধ্যে মাত্র ১৮ জন চিকিৎসক যোগদান করেছিলেন। আবার এই ১৮ জনের মধ্যে বেশির ভাগই চুক্তির ভিত্তিতে নিযুক্ত হয়েছিলেন।

উল্লেখ্য অতিরিক্ত রোগীর চাপ সহ্য করতে না পেরে এদের মধ্যে বেশিরভাগ চিকিৎসকই কাজ করতে চাইছেন না। আর তার জেরেই অলিখিত ছুটি নিয়ে চলে যাচ্ছেন বলে মত চিকিৎসকদের একাংশের। তার উপর জেলার দুই সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের দু জন চিকিৎসক দীর্ঘ দেড় মাস ধরে কতৃপক্ষকে না জানিয়ে হাসপাতালে আসছেন না। এর জেরে ঝাড়গ্রাম জেলা এবং সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে বিপুল সংখ্যক রোগীর চাপ সামলাতে কার্যত ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা।

প্রসঙ্গগত গত পাঁচ মাস আগে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ৩ জন চিকিৎসক ১ জন গাইনোকলজিস্ট, ২ জন মেডিক্যাল অফিসার গত পাঁচ মাস আগে একই ভাবে অলিখিত ছুটি নিয়ে চলে গিয়েছেন।

এই বিষয়ে ঝাড়গ্রাম জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক অশ্বিনীকুমার মাঝি বলেন, ‘ঝাড়গ্রাম জেলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের একজন মেডিক্যাল বিভাগের চিকিৎসক এবং গোপীবল্লপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে রেডিওলোজী বিভাগের একজন চিকিৎসক ছুটির কোন আবেদন না করেই প্রায় দেড় মাস ধরে হাসপাতালে আসছেন না। আমরা ওদের চিঠি করে কারন জানানোর জন্য বলেছি। কিন্তু ওরা কোন উত্তর দেয়নি। আমি পুরো বিষয়টি রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরে জানিয়েছি।’

Related Articles

Stay Connected

0FansLike
3,498FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles