ফেরত নিতে ৩৭৪ রোহিঙ্গার তালিকা দিলো মিয়ানমার!

ফেরত নিতে ৩৭৪ রোহিঙ্গার তালিকা দিলো মিয়ানমার!

মিজান রহমান, ঢাকা, বেঙ্গলটুডে :

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় প্রথম পর্বে জনগোষ্ঠীটির আট হাজার ৩২ জনের তালিকা মিয়ানমারের কাছে দেওয়া হলেও তারা সেখান থেকে মাত্র ৩৭৪ জনকে ‘শনাক্ত’ করে ঢাকায় পাঠিয়েছে। শনাক্তকৃত এই রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের শরণার্থী শিবির থেকে প্রথম পর্বে ফেরাতে চাইছে তারা। বুধবার (১৪ মার্চ) সন্ধ্যায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, নেপিদো থেকে মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে ‘শনাক্ত’ ৩৭৪ জনের তালিকা বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। তবে এই তালিকার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত কী হবে, অথবা কবে নাগাদ প্রত্যাবাসন শুরু হবে, তা নির্দিষ্ট করে জানাননি তিনি। এর আগে এই তালিকার নাম প্রকাশ করতে বুধবার বিকেলে নেপিদোতে সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয় বলে জানায় মিয়ানমারে বাংলাদেশের একটি কূটনীতিক সূত্র। সূত্রের তথ্য, সংবাদ সম্মেলনে বিদেশি কূটনীতিক ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের ডাকা হয়। তবে ‘শনাক্ত’ রোহিঙ্গার এই সংক্ষিপ্ত তালিকা বিস্মিত করেছে বাংলাদেশের কূটনীতিকদের। অবশ্য ঢাকায় তালিকাটি চলে আসায় এখন এ বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থান জানা যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। কক্সবাজারে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়ায় গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় দু’দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। বৈঠকে রোহিঙ্গাদের ৮ হাজার ৩২ জনের একটি তালিকা মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লেফটেন্যান্ট জেনারেল কিয়াও সোয়ে’র নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলের হাতে তুলে দেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তারপর নেপিদোতে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাস জানায়, ওই তালিকা যাচাই করছে মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা তালিকা যাচাইয়ের পর সেটি পাঠাবে অভিবাসন কার্যালয়ে। অভিবাসন কার্যালয় যাচাই-বাছাইয়ে তথ্য-উপাত্ত মিলিয়ে দেখে সন্তুষ্ট হলেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে। গত বছরের আগস্টে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রাখাইনে দমন-পীড়ন শুরু করলে সেখান থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় লাখো রোহিঙ্গা, যা এখন পর্যন্ত ৭ লাখের বেশি। বিভিন্ন সংস্থার হিসাব মতে, সবমিলিয়ে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা প্রায় ১১ লাখ। মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নির্যাতনকে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা ‘জাতিগত নিধনযজ্ঞ’ বলে অভিহিত করেছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের তীব্র সমালোচনা ও চাপের মুখে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে গত নভেম্বরে বাংলাদেশের সঙ্গে সমঝোতায় পৌঁছায় মিয়ানমার।

You May Share This
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.