দিদির এক ফোনেই সব রাগ গলে জল, ভুল জায়গায় চাল দিয়ে কিস্তিমাত হলেন মুকুল নিজেই

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গলটুডে, কোলকাতাঃ

ফের স্বমহিমায় ফিরে এলেন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় নেপথ্যে দিদির একটা ফোন। মাত্র একটা ফোনেই সমস্ত সমস্যার সমাধান হয়ে গেল। আর কদিনে মিইয়ে যাওয়া শোভন চট্টোপাধ্যায়ের মেজাজ ফিরে এল। মঙ্গলবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সমস্ত প্রশ্নের জবাব দিলেন সোজাসাপ্টা।

উল্ল্যেখ্য ইদানীং নানা জল্পনা চলছিল মেয়র রাজনৈতিক গতিবিধি নিয়ে। ক্রমশই শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে পরিস্থিতি নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছিল। এরই মধ্যে মুকুল রায়ের একটি বার্তাতেই টনক নড়ল তৃণমূলের। মুকুল রায় ছোট্ট চাল দিয়ে জানিয়েছিলেন, “শোভন চট্টোপাধ্যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। তিনি দল ছাড়লে মমতা ও তৃণমূল সমস্যার পড়বে।”

এরপর আর দেরি না করে শেষ অস্ত্রটা প্রয়োগ করেই ছাড়লেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি চান না, পঞ্চায়েত ভোটের আগে ফের একটা তুরুপের তাস বিপক্ষ বিজেপির হাতে তুলে দিতে। তাই অভিমান ভুলে দলের স্বার্থে নিজেই ফোন করলেন তাঁর প্রিয় কাননকে। কিন্তু কী এমন কথা হল তাঁদের?

শোভন এদিন নিজের মুখেই জানালেন সে কথা। শোভন বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী সোমবার আমায় ফোন করেছিলেন। আজও কথা হয়েছে দিদির সঙ্গে। উনি বলেছেন, যেভাবে কাজ করছো, করে যাও। কে কী বলল, কোন বিষয় সমানে আনল, ওসব ভাবার দরকার নেই। কোনও দিকে কান না করে শুধু মানুষের কাজ কর। সামনে অনেক কাজ। আর অবহেলা না করে দায়িত্ব পালন কর।”

দিদির এ কথা শুনে আর অভিমান করে থাকেননি শোভন। তিনি কথা দেন, সবার আগে মানুষের কাজকে, দলের কাজকেই তিনি গুরুত্ব দেবেন। আর অন্য দিকে ফিরে তাকাবেন না। অবশেষে মমতার ফোন পেয়েই বরফ গললো। শোভন কার্যত ভেঙে পড়েন তাঁর প্রিয় দিদির কাছে। তিনি জানান, তাঁর মাথায় দল ছাড়ার ভাবনা আসেনি। দলের বিশ্বস্ত সৈনিক হিসেবে তিনি কাজ করে যাবেন।

মুখ্যমন্ত্রী ও দিদির ফোন পাওয়ার পরই মেয়রের শরীরী ভাষা বদলে গিয়েছে। মঙ্গলবার কলকাতা পুরসভায় তাঁকে পুরনো মেজাজে তাকে আবার দেখা গিয়েছে। কোর কমিটির বৈঠকে অনুপস্থিত থাকার পর থেকে যে মেঘ জমেছিল, তা বর্তমানে কেটে গিয়েছে পুরোপুরি। আপাতত শোভনকে নিয়ে ওঠা যাবতীয় গুঞ্জন বন্ধ হলো। তৃণমূলে শোভন-চ্যাপ্টার আপাতত ক্লোজড বা ঠাণ্ডা ঘরে এই মুহূর্তে।

সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Comment