‘৯ মাস অনুমতি দেয়নি রেল, তখন কী করছিল?’ বিজেপির মাঝেরহাট ব্রিজ অভিযানকে আক্রমণ মমতার

‘৯ মাস অনুমতি দেয়নি রেল, তখন কী করছিল?’ বিজেপির মাঝেরহাট ব্রিজ অভিযানকে আক্রমণ মমতার

কলকাতা: মাঝেরহাট ব্রিজ খোলার দাবিতে বিজেপির মিছিলে ধুন্ধুমারকাণ্ডের বাঁধার পর গেরুয়া শিবিরকে তুমুল আক্রমণ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন মুখ্যমন্ত্রী জানান, রেল অনুমতি দেয়নি, তাই ৯ মাস ধরে অপেক্ষা করতে হয়েছে। তিনি বলেন, ৯ মাস আগেই মাঝেরহাট ব্রিজ চালু করা যেতে পারত। রেল অনুমতি দেয়নি, তাই ৯ মাস ধরে অপেক্ষা করতে হয়েছে।

তাঁর প্রশ্ন, অনুমতি চেয়ে ৯ মাস অপেক্ষা করতে হচ্ছিল, তখন বিজেপি কী করছিল? তাঁর মতে, ভোটের সময় বড়বড় ভাষণ দিতে চলে আসে। নীচ দিয়ে রেল যাবে, অনুমতি না দিয়ে মানুষকে হেনস্থা করা হচ্ছে।কেন্দ্রীয় নীতির বিরোধিতায় বিরোধী শ্রমিক সংগঠনের ডাকা দেশজোড়া ধর্মঘটের দিনেই মাঝেরহাট ব্রিজ অবিলম্বে চালুর দাবিতে বিজেপির মিছিল ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ড বেঁধে যায়। তারাতলায় গার্ডরেল ভেঙে বিক্ষোভ বিজেপির, পাল্টা লাঠিচার্জ করে পুলিশ। আটক বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মী ও সমর্থক। বিজেপির দাবি, কৈলাস বিজয়বর্গীয় ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তাঁকেও ধরে বাসে তোলে পুলিশ। কিছুক্ষণ পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হলেও, তিনি বলেন, আগে কর্মীদের ছাড়তে হবে। তারপর আমি যাব। কৈলাসের অভিযোগ, কোনওরকম প্ররোচনা ছাড়াই লাঠিচার্জ করে পুলিশ। কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে গ্রেফতার করা হয়নি, তিনি নিজেই বাসে উঠে যান। দাবি পুলিশের।এই প্রসঙ্গে মমতা কটাক্ষ করে বলেন, কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে পুলিশ গ্রেফতার করেনি, তাও বলছে গ্রেফতার। ভোটের সময় যারা গুন্ডামি করতে আসে, তারা বহিরাগত। বাংলায় বহিরাগতদের কোনও জায়গা নেই। বাঁকুড়ায় রেলের জমিতে উচ্ছেদের অভিযোগকে কেন্দ্র করেও সরব হন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, রেলের জমিতে উচ্ছেদের অভিযোগ পেয়েছি বাঁকুড়ায়। এরা শুধু মানুষকে হেনস্থা করে।

You May Share This
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply