প্রয়াত হলেন প্রতিভাবান অভিনেত্রী শ্রীদেবী

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গল টুডে:

মাত্র ৫৪ বছর বয়সে হৃদ রোগে আক্রান্ত হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন কিংবদন্তী অভিনেত্রী শ্রীদেবী। মূলত বলিউড দুনিয়ার সবথেকে প্রতিভাবান অভিনেত্রীকে হারিয়ে শোকস্তব্ধ দেশ। উল্লেখ্য তিনি তাঁর মৃত্যুর ঠিক আগের মুহূর্তে দুবাইতে অভিনেতা মোহিত মরওয়ার বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দেখা যায়। এমনকি জীবনের শেষ দিনগুলিতে দুবাইতে ওই বিয়ের অনুষ্ঠানে স্বামী বনি কাপুর ও মেয়ে খুশির সঙ্গে ছিলেন অভিনেত্রী। কিন্তু শ্রীদেবী এভাবে চলে যাবেন, তা খুব স্বাভাবিক ভাবেই একথা কেউ কল্পনাও করতে পারেননি। তবে অপরদিকে তাঁর এই হঠাৎ প্রয়াণে সবথেকে দুঃখজনক বিষয় শেষবেলায় মার সাথে থাকতে থাকতে পারেননি শ্রীদেবীর বড় মেয়ে জাহ্নবী। কারন তাঁর ‘ধড়ক’-এর শ্যুটিং থাকায় মোহিত মরওয়ার বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি জাহ্নবী।

এই কিংবদন্তী অভিনেত্রীর মৃত্যুতে বলিউড জগতের প্রায় সকল ব্যক্তিই শোক প্রকাশ করেন এবং প্রত্যেকেই টুইট করে সেই বার্তা জানান। পাশাপাশি রাজনৈতিক মহলেও শোকের ছায়া বর্তমান। শ্রীদেবীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের শোকপ্রকাশ। টুইটারে রামনাথ কোবিন্দ লিখেন, অভিনেত্রী শ্রীদেবীর মৃত্যুর খবরে শোকহাত। কয়েক লক্ষ ভক্তের হৃদয় ভেঙে গিয়েছে। লমহে, ইংলিশ ভিংলিশ ছবিতে তাঁর অভিনয় অন্য অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কাছে অনুপ্রেরণার। পরিবার এবং নিকট আত্মীয়দের সমবেদনা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি।

শোক প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। তিনিও টুইট করে বলেন, বিশিষ্ট অভিনেত্রী শ্রীদেবীর অকাল প্রয়াণে শোকাহত। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির প্রবীণ অভিনেত্রী ছিলেন তিনি। তাঁর দীর্ঘ কেরিয়ারে রয়েছে বিভিন্ন ভূমিকা ও স্মরণীয় মুহূর্ত।এই শোকের সময়ে আমি তাঁর পরিবার ও অনুগামীদের সমবেদনা জানাচ্ছি। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করছি। পাশাপাশি শোক প্রকাশ করেন উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডুও।



কেন্দ্রীয় বস্ত্রমন্ত্রী স্মৃতি ইরানির ট্যুইট, শ্রীদেবী — অভিনয় জগতের কিংবদন্তী। বহু সাফল্যে ভরা দীর্ঘযাত্রা হঠাৎ থেমে গিয়েছে। অনুরাগী এবং কাছের মানুষদের সমবেদনা জানাই।

প্রসঙ্গগত, ১৯৬৩ সালে তামিলনাড়ুর শিবকাশিতে জন্মগ্রহণ করেন শ্রীদেবী। প্রথমবার বলিউডে ‘জুলি’ (১৯৭৫) ছবিতে দেখা যায় তাঁকে। পুরো দস্তুর নায়িকা হিসেবে ‘ষোলবা সাওন’ (১৯৭৮) ছবিতে আত্মপ্রকাশ। এর পরে একে একে ‘হিম্মতওয়ালা’ (১৯৮৩), ‘সদমা’ (১৯৮৩), ‘মিস্টার ইন্ডিয়া’ (১৯৮৯), ‘চাঁদনি’ (১৯৮৯), ‘চালবাজ’ (১৯৮৯)-এর মতো অসংখ্য ছবি রয়েছে শ্রীদেবীর ঝুলিতে। এমনকি সম্প্রতি তাঁর অভিনীত ‘ইংলিশ ভিংলিশ’ এবং ‘মম’ ছবি দুটিও সত্যিই অনবদ্য।

সম্পর্কিত সংবাদ