শাসন বারণ মানবো না, মরতে হয় মরবো

Spread the love
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

 

রাজীব মুখার্জী, রামরাজতলা, হাওড়াঃ স্টেশনে ফুটব্রিজ থাকা সত্ত্বেও ফুটব্রিজ দিয়ে লাইন পার করবো না, লেভেল ক্রসিং পড়ে গেলেও জীবনের ঝুঁকি নিয়েই লাইন পার হবো। হেটে যাওয়ার জন্য পি. ডব্লু. ডি.-র বানানো পিচ রাস্তা রয়েছে যাবো না সেখান দিয়েও। রেল লাইন ধরেই হাঁটবো। নিজের গন্তব্যে যাবো। এ যেন আত্মহত্যা করার এক নয়া পন্থা। এতো সচেতনতা বাড়ানোর জন্য প্রচার চলছে তবু রেল লাইন দিয়ে হাঁটার প্রবণতা এতটুকুও কমেনি। আজ তারই মাশুল দিলো দুই যুবক। ঘটনাটি ঘটলো আজ দুপুর সোয়া ২ টো নাগাদ রামরাজতলা স্টেশনের অদূরেই।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, “ট্রেনটা রামতলা প্লাটফর্ম থেকে বেরোনোর সময় হর্ন দিয়ে বেরিয়েছিল। কিন্তু লোক দুটো এতো কথা বলতেই ব্যস্ত নিজেদের মধ্যে যে ট্রেনের হর্ন অব্দি শুনতে পায়নি। এটাই বোধহয় হয় নিয়তি।” প্রতিদিনের মতোই ট্রেন আসার আগে রামরাজতলা স্টেশনের ক্রসিং-এর গেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। আপ পাঁশকুড়া লোকাল স্টেশন ছেড়ে বেরিয়ে ১০০ মিটার যাওয়ার পরেই ধীরে ধীরে গতি বাড়ে। আজকেও তাই হয়েছিল।

এদিন দুজন লোক লাইনের উপর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলো সাঁতরাগাছি ব্রিজের দিকে। পেছনে থেকে আসা ট্রেন বা তার আওয়াজ কোনোটাই শুনতে পায়নি তারা। খুব সামনে এসেও হর্ন দিলেও চালক ব্রেক কষলেও ততক্ষনে দুজনের উপর দিয়ে চলে গেছে প্রায় তিনটি কামরা। ঘটনার সাথে সাথেই আর না দাঁড়িয়ে বেরিয়ে যায় ট্রেনটি। এরপর স্থানীয়রা স্টেশন মাস্টারকে খবর দেয়। খবর পাওয়ার পরই অল্প কিছুক্ষণ বাদেই ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায় শালিমার জি. আর. পি. এফ. এর একটি দল। লাইন থেকে দুটি মৃতদেহ তুলে নিয়ে যায় তারা। তবে এখনও পর্যন্ত মৃত ব্যক্তিদের কোনো পরিচয় জানা যায়নি রেলের তরফে। এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে রেল পুলিশ।

সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Comment