দেওরের কুপ্রস্তাব ও শ্বশুরবাড়ির অত্যাচারে আত্মঘাতী যুবতী

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গল টুডে:

একাধিকবার দেওরের কুপ্রস্তাব পাশাপাশি পণের দাবিতে শ্বশুরবাড়ির শারীরিক ও মানসিক নিৰ্যাতনে আত্মঘাতী সাইথিয়া থানার অন্তর্গত দেড়পুর গ্রামের এক যুবতী। মৃতের নাম সুলোচনা মণ্ডল (৩২) (নাম পরিবর্তিত)। এমনটাই অভিযোগ জানান যুবতীর বাবা ও মা। পাশাপাশি অভিযোগ এর জেরেই ২৮ শে জানুয়ারি আত্মঘাতী হয়েছেন যুবতি।

উল্লেখ্য এর জেরেই যুবতির শ্বশুরবাড়ির লোকেদের গ্রেপ্তারের দাবিতে এদিন সাঁইথিয়া থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখায় যুবতির প্রতিবেশীরা। এমনকি ভাঙচুর করা হয় তাঁর শ্বশুরবাড়িতে।

প্রসঙ্গগত সাঁইথিয়ার কান্দুরি গ্রামের বাসিন্দা বছর ৩২ এর সুলোচনা মণ্ডলের সাথে আগের বছর ১৫ জুলাই বিয়ে হয় দেড়পুরের সুখেন মণ্ডলের। অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে পণের দাবিতে স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি সুলোচনার উপর অত্যাচার চালাত। এমনকি সিভিক ভলান্টিয়ার দেওরও তাকে কুপ্রস্তাব দিত। তাতে সাড়া না দেওয়ায় দেওরও অত্যাচার চালাত।

এ প্রসঙ্গে যুবতির বাবা বলেন, “৩ লাখ টাকা নগদ এবং ১৫ ভরি সোনা দিয়ে মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলাম। তারপরও অতিরিক্ত টাকার জন্য মেয়ের উপর অত্যাচার করত। জামাইয়ের ছোটোভাই সিভিক ভলান্টিয়ার ভূপেন মণ্ডল মেয়েকে কুপ্রস্তাব দেয়। মেয়ে তাতে রাজি না হওয়ায় সেও অত্যাচার করত। দিন কয়েক আগে ও আমাদের বাড়িতে গিয়ে সেসব কথা জানিয়েছিল। শ্বশুরবাড়িতে ও আর ফিরতে চাইছিল না। আমরাই বুঝিয়ে শ্বশুরবাড়িতে দিয়ে এসেছিলাম। ২৮ শে জানুয়ারি আলোচনায় বসে সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করা হয়েছিল। সেই মতো আমরা মেয়ের বাড়ি যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। তার মধ্যেই দুঃসংবাদ পাই।”

সম্পর্কিত সংবাদ