কৃষি ও পরিবেশ উন্নয়নে বায়োচার

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

ইফরান আল রাফি,পটুয়াখালী, বাংলাদেশঃ  ভারতীয় উপমহাদেশের মাটিতে জৈব পদার্থ সংরক্ষন একটি বড় চ্যালেঞ্জ। প্রাকৃতিক ও মানব সৃষ্ট কারনে ক্রমশ হ্রাস পাচ্ছে মাটির পুষ্টি উপাদান। উক্ত উপাদান ধরে রাখার জন্য কৃষি ও পরিবেশ উন্নয়নে নতুন মাত্রা হিসেবে যুক্ত হয়েছে বায়োচার প্রযুক্তি। বায়োচার হল এক ধরনের জৈব পদার্থ (Biomass) যা অক্সিজেনের অনুপস্থিতিতে তৈরী এক ধরনের কাঠ কয়লা। মূলত কাঠ জাতীয় পদার্থ,বর্জ্য (পোল্ট্রি, ময়লা আর্বজনা) ইত্যাদি থেকে বায়োচার তৈরী করা হয়। পাইরোলাইসিস প্রক্রিয়ায় অক্সিজেনের অনুপস্থিতিতে তাপ দেওয়ার সময় সরল লম্বা চেইন বিশিষ্ট জৈব পদার্থ থেকে অ্যারোমেটিক চেইন বিশিষ্ট জৈব পদার্থ তৈরী হয়। বায়োচার দীর্ঘদিন মাটিতে স্থায়ী হয় কারন মাটির অনুজীব সহজে জৈব যৌগটিকে ভাঙ্গতে পারে না। ফলশ্রুতিতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে মুক্তি পেতে বায়োচার প্রযুক্তি ব্যবহার কৃষি এবং পরিবেশ রক্ষায় সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে।

এই প্রক্রিয়া বাতাসের কার্বনডাইঅক্সাইডকে প্রথমে গাছে তারপর মাটিতে শতবছরের অধিক সময় পর্যন্ত ধরে রাখে। বায়োচার একটি অধিক পৃষ্ঠতল বিশিষ্ট এবং আয়ন যুক্ত পদার্থ যা মাটিতে প্রয়োগের মাধ্যমে মাটির ভৌত ও রাসায়নিক গুনাগুনের পরিবর্তন সাধিত হয়। ফলশ্রুতিতে মাটির জল ধারন ক্ষমতা এবং ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পায়। পাইরোলাইসিস প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বায়োচার উৎপাদন করা হয় এবং এই উৎপাদিত বায়োচার কম্পোষ্টিং প্রক্রিয়ায় ব্যবহার করা হয়।

উল্লেখিত বায়োচার কম্পোষ্টিং প্রক্রিয়ায় উৎপাদিত গাছের পুষ্টি উপাদান বিশেষ করে নাইট্রোজেন ধরে রাখে,অন্যথায় তা বাতাসে উড়ে যায়। ফলে এই প্রক্রিয়ায় উৎপাদিত কম্পোষ্টে সাধারন কম্পোষ্টের তুলনায় বেশী পুষ্টি উপাদান থাকে। বায়োচার মাটি দূষণরোধেও সহায়ক ভূমিকা রাখে। এটি থেকে নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদন করা সম্ভব।

উল্লেখ্য বায়োচার উৎপাদনের সময় উৎপাদিত তাপশক্তি দ্বারা বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং রান্না করা সম্ভব। যা ভারতীয় উপমহাদেশে বিদ্যুত ঘাটতি পূরনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে। বায়োচার প্রযুক্তিকে আধুনিকায়ন ও সক্রিয়করনে কৃষি বিজ্ঞানীদের গবেষণা আন্তর্জাতিক মহলে বেশ সুনাম অর্জন করেছে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ও সহযোগিতা পেলে বায়োচার প্রযুক্তি খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন ও পরিবেশ উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা যে রাখবে তা বলাই বাহুল্য।

সম্পর্কিত সংবাদ