মাকে মিষ্টি খাওয়ানোর অপরাধে গুনধর ছেলের হাতে মার খেল বছর ৯৪ এর বাবা

মাকে মিষ্টি খাওয়ানোর অপরাধে গুনধর ছেলের হাতে মার খেল বছর ৯৪ এর বাবা

 

শান্তনু বিশ্বাস,অশোকনগরঃ  মাএ পাঁচ দিন আগে বিজয়ার শুভেচ্ছা নিতে গুরুজনদের পায়ে প্রনাম করে মিষ্টি মুখ করে। ঠিক তেমনই স্বামীর পায়েও হাত দিয়ে প্রণাম করেন স্ত্রী। তাই নিজে একটু বাজার থেকে মিষ্টি এনে খাইয়ে দেন স্ত্রীকে। কিন্তু স্ত্রী ডায়বেটিসের রোগী। তাই তাকে মিষ্টি খাওয়ানোই ছিল বড়ো অপরাধ বছর ৯৪ এর বৃদ্ধা স্বামী মানিক লাল বিশ্বাসের। আর এই অপরাধের শাস্তি হিসাবে প্রকাশ্যে বাড়ির উঠোনের উপর তার ছেলে খালি গায়ে দাড়িয়ে অকথ্য ভাষায় কথা বলে পরে সপাটে চড় গুনোধর ছেলের। সাথে শারীরিক নির্যাতন করে গুনধর ছেলে প্রদীপ বিশ্বাস। ৩ মিনিট ১৭ সেকেন্ডের ভিডিওতে সেই মারধরের ভিডিও করেন এলাকারই এক প্রতিবেশী যা ছড়িয়ে দেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। মুহূর্তে তা ভাইরাল হয়ে যায়। আর সেই ভিডিওতে দেখা যায় কি বেপার এইটা নিয়ে গেছে লুকিয়ে। বলেই সপাটে চড় গালে। পরে আবার জামার কলার ধরে আবার সপাটে চড় মারেন তার গুনধর ছেলে।

[espro-slider id=13358]

মুহূর্তের মধ্যে সেই ভিডিও ভাইরাল হলে নজরে আসে বারাসাত জেলা পুলিশের আধিকারিকদের। তাঁরা খোঁজ নেন অশোকনগর থানায়। অশোকনগর থানা সন্ধান লাগিয়ে জানতে পারে প্রদীপ বিশ্বাসের বাড়ি অশোকনগর থানার অন্তরগর্ত বিল্ডিং মোড় এলাকায়। প্রদীপ অশোকনগর-কল্যাণগড় পৌরসভায় ট্যাক্স কালেক্টর হিসেবে কাজ করেন। এলাকায় তার ডাক নাম ‘নাটা প্রদীপ ‘। প্রদীপকে সাথে সাথে অশোকনগর থানা আটক করে পরে গ্রেফতার করে। কিছু সময় পরে নিগৃহীত পিতা মানিক বাবু অশোকনগর থানায় ছেলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন। প্রদীপ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে বাবাকে মারধর ও প্রবীণ নাগরিকদের মারধরের ধারায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ২৫শে অক্টোবর অথাৎ বৃহস্পতিবার অভিযুক্তকে বারাসাত আদালতে তোলা হবে।

You May Share This

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.