শারদ উৎসবের বিশেষ প্রতিবেদনঃ আলোক সজ্জা আর কল্পনার ছোঁয়াতে জমজমাট বনগাঁর শারদ উৎসব

শারদ উৎসবের বিশেষ প্রতিবেদনঃ আলোক সজ্জা আর কল্পনার ছোঁয়াতে জমজমাট বনগাঁর শারদ উৎসব

 

জয় চক্রবর্তী, বনগাঁঃ কোথাও মণ্ডপ তৈরি হয়েছে থাইল্যান্ডের বৌদ্ধ মন্দিরের আদলে, আবার কোথাও মণ্ডপ মাথা তুলেছে “বাহুবলী-২” সিনেমাতে দেখানো মহিষমতির প্রসাদের আদলে। কোথাও জীবন্ত গ্রাম, মায়াজাল, মহিষমতির সাম্রাজ্য আর ভাসমান দূর্গায় এবারের বনগাঁর সারদ উৎসব জমজমাট হয়ে উঠেছে।

প্রতি বছর বনগাঁয় থিম পুজোর আকর্ষনে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ ছুটে যায়। এমন কি পুজোর দিনগুলিতে ওপার বাংলা থেকেও মানুষের ঢল নামে সীমান্ত শহর বনগাঁয় ৷ ওপার বাংলার বহু মানুষ বলে, দূর্গাপুজো মানে বনগাঁ শহরের দূর্গাপুজোই। থিম, আধুনিকতা ও আলোক সজ্জায় এই শহরের দূর্গাপুজো রাজ্যের বহু মানুষের মন কেড়ে নিয়েছে৷

বীরভূমের বোখরাজপুর গ্রামকে কয়েক মাস ধরে জীবন্ত নির্মান করে এবারে মানুষের সামনে উপহার দিতে চলেছে জয়ন্তীপুর ফ্রেন্ডস ক্লাব। লাউয়ের মাচা, ঝুড়ি বোনা, চাষাবাদ, আদিবাসী নাচে, গানে মাতিয়ে তুলবেন পোখরাজপুর গ্রাম থেকে আসা মানুষেরা।

এগিয়ে চলো সঙ্ঘের ৫১তম বর্ষে নির্মিত হচ্ছে মহীশুরের রাজপ্রাসাদের আদলে মন্ডপ। প্রধান আকর্ষন বধূ-নির্যাতন ও নারী-নির্যাতনের বিষয় মডেলের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা৷

 

শিমুলতলা আয়রন গেট স্পোটিং ক্লাবের বাহুবলি ২ সিনেমার মহিষমতির সাম্রাজ্যের রাজপ্রাসাদের আদলে এবার তাদের মন্ডপ সাথে থাকছে কৃষ্ণনগরের প্রতিমা।

অভিযান সংঘের ৭৩ তম বর্ষে এবারে মন্ডপ জুড়ে থাকছে আলোর মায়াজাল। মণ্ডপ নির্মীত হচ্ছে মাছ ধরার জাল, ফোম, কৃষ্টালবল দিয়ে। থাকছে ভাসমান দূর্গা ও শান্তিপুরের আলোকসজ্জা।

থাইল্যান্ডের সিলভার প্যাগোডা বৌদ্ধ মান্দিরের আদলে কাল্পনিক মন্ডপ বানিয়ে এবার চমক দিচ্ছে “১৫ র পল্লি যুবগোষ্ঠি।” ১১৮ ফুট উচ্চতার এই মন্ডপ তৈরি হচ্ছে ১৮ লক্ষ মুক্ত, ও কাঁচ দিয়ে। আলোক সজ্জায় থাকছে কন্যাশ্রী, সবুজ সাথী সহ নানা সরকারি প্রকল্পের প্রচার৷

এছাড়াও নজর কেরেছে আরও কয়েকটি পুজো, তাদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য প্রোতাপগড় স্পোটিং ক্লাবের এবারের থিম পুতুলের দেশে৷

তালতলা এথেলেটিক ক্লাব জারোয়া উপজাতির জীবন যাত্রা থিমের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলছে৷

বলাকা সমিতি মণ্ডপ তৈরি করেছে দক্ষিন ভারতের একটি শিব মন্দিরের আদলে।

পাইকপাড়া সবুজ সংঘ নির্মান করেছেন হায়দ্রাবাদের কৃষ্ণ মন্দিরের আদলে মন্ডপ।

মাঝে আর কয়েকটা দিনের অপেক্ষা, তার পরেই শুরু হয়ে যাবে মন্ডপে মন্ডপে দর্শনার্থীদের ভিড়। আলো আর থিমের মিশেলে ভাঁসবে সীমান্ত শহর বনগাঁ৷

You May Share This

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.