টাকা ধার না দেওয়ায় জামাইবাবু কে খুনের চেষ্টা, পলাতক শ্যলক ও তার স্ত্রী

Spread the love
  • 20
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    20
    Shares

 

শান্তনু বিশ্বাস, মিনাখাঁঃ ২০০ টাকা ধার চেয়েছিলো শ্যলক জামাই বাবুর কাছে। আর্থিক অনটনের জন্য শ্যলকের আবদার মেটাতে পারেনি জামাইবাবু। সেই রাগ মেটানোর জন্য বাড়িতে ডেকে জামাই বাবু কে খুনের চেস্টা করল শ্যলক ও তার স্ত্রী। এমনটাই অভিযোগ জামাইবাবুর। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার মিনাখাঁ থানার অন্তর্তগত চাঁপালি গ্রাম পঞ্চায়েতের পিউরিয়া গ্রামে। গত কয়েক দিন আগে শ্যলক নিলরতন মাঝি বিশেষ প্রয়োজনে জামাইবাবু কালু মাঝির কাছে ২০০ টাকা ধার চায়। জামাইবাবু কালু মাঝির সেই সময় আর্থিক অনটন থাকার জন্য শ্যলকের আবদার মেটাতে পারেনি। জামাইবাবু-র কাছে মাত্র ২০০ টাকা ধার না পাওয়ায় রেগে যায় শ্যলক নিলরতন মাঝি। সেই রাগ মেটানোর জন্য ৭ই জুলাই, শনিবার জামাইবাবু কে আমন্ত্রন করে শ্যলক নিলরতন মাঝি ও তার স্ত্রী লতা মাঝি। শ্যলকের আমন্তন রক্ষয় যথারিতী সন্ধ্যা বেলায় জামাইবাবু হাজির হন শ্যলকের বাড়ি। জামাইবাবু কালু মাঝি বাড়িতে যাওয়া মাত্রই, বেধড়ক মারধোর শুরু করে শ্যলক ও তার স্ত্রী। বাড়িতে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে জামাইবাবুর মাথায়, গালায়, পায়ে, হাতে আঘাত করে। জামাইবাবু কালু মাঝির চিৎকারে বাড়ির পাশের এক প্রতিবেশী ছুটে এসে কালু মাঝি কে উদ্ধার করে। সঙ্গে সঙ্গে তাকে মিনাখাঁ গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে আসে। সেখানে চিকিৎসা করে রাতে ছেড়ে দেওয়া হয়। এরপর ঘটনার বিবরন জানিয়ে ৮ই জুলাই, রবিবার মিনাখাঁ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন কালু মাঝি। ঘটনার পর থেকে পলাতক নিলরতন মাঝি ও তার স্ত্রী লতা মাঝি। ঘটনার তদন্তে নেমেছে মিনাখাঁ থানার পুলিশ।

সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Comment