প্রয়াত হলেন আধুনিক বিজ্ঞানের বিখ্যাত বিজ্ঞানী স্টিভেন হকিং

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ওয়েবডেস্ক, বেঙ্গল টুডে:

দীর্ঘদিন যাবত মোটর নিউরন ডিজিজের সাথে লড়াই করে অবশেষে ১৪ই মার্চ ভোররাতে ইংল্যান্ডের কেমব্রিজে, নিজের বাড়িতেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করলেন স্টিফেন হকিং। বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানিত এবং সুপরিচিত একজন বিজ্ঞানী স্টিভেন হকিং ৭৬ বছর বয়স পর্যন্ত লড়ে গেলেন তিনি। শুধু লড়াই নয়, কাজ করে গেলেন আমৃত্যু।

১৯৪২ সালের ৮ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের অক্সফোর্ডে জন্ম হয় আধুনিক বিজ্ঞানের এই অন্যতম সেলিব্রিটির। গ্যালিলিওর জন্মের ঠিক ৩০০ বছর পরে। গরিব পরিবারের হলেও হকিংয়ের বাবা-মা দুজনেই পড়তেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাবা ছিলেন মেডিসিনের ছাত্র। মা পড়তেন রাজনীতি, অর্থনীতি এবং দর্শন। হকিংরা ছিলেন চার ভাই-বোন। এরপর ১৯৬২ সালে মাত্র ২০ বছর বয়সে মোটর নিউরন নামে স্নায়ুর এক মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হন হকিং। মোটর নিউরনের একটি রোগ অ্যামিওট্রপিক লেটারেল স্কেলরোসিস-এ (এএলএস) আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। সেই সময়ে চিকিৎসকরা বলেছিলেন, ২ বছরের বেশি বাঁচা সম্ভব নয় হকিংয়ের। এর পর থেকে তাঁর পুরো জীবনই কেটেছে হুইলচেয়ারে। পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়েও কম্পিউটার স্পিচ সিন্থেসাইজারের মাধ্যমে কথা বলতেন তিনি।

হকিংয়ের কাজের বেশির ভাগ অংশ জুড়েই ছিল আপেক্ষিকতাবাদ, কোয়ান্টাম তত্ত্ব এবং মহাবিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে থাকা অজস্র ক্ষুদ্র কণা ও তাদের চরিত্র এবং অবশ্যই ব্ল্যাক হোল। ১৯৭৪ সালে ব্ল্যাক হোলের উপর তাঁর বিখ্যাত থিওরি ‘হকিং রেডিয়েশন’ সামনে আনেন। সেই বছরই মাত্র ৩২ বছরে বয়সে রয়্যাল সোসাইটির ফেলো হন তিনি। ১৯৭৯ সালে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের লুকেসিয়ান প্রফেসর হন। এই পদে ছিলেন আইজ্যাক নিউটনও। ১৯৮৮ সালে প্রকাশিত হয় ‘আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম’। বইটির শুধুমাত্র ইংরেজি সংস্করণই এক কোটি কপি বিক্রি হয়েছিল। ২০০১ সালের মধ্যে ৩৫টি ভাষায় অনূদিত হয়েছিল ‘আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম’। ২০০১ সালে প্রকাশিত হয় তাঁর ‘দ্য ইউনিভার্স ইন আ নাটশেল’। তবে তার “থিওরি অফ এভরিথিং” বা “সবকিছুর তত্ত্ব” মানুষকে সবচেয়ে বেশি আকর্ষণ করে-যাতে তিনি ধারণা দেন যে মহাবিশ্ব কিছু সুনির্দিষ্ট নিয়মের মধ্যেই বিবর্তিত হয়।

“এই মহাবিশ্বের শুরু কীভাবে হলো- এমন সব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে এসব নিয়ম”, তিনি বলেন “কবে এর শেষ হবে? কীভাবে শেষ হবে? এসবের উত্তর যদি আমরা জানতে পারি, তাহলে আমরা আসলেই ঈশ্বরের মন বুঝতে পারবো”। ২০১৪ সালে স্টিফেন হকিংয়ের জীবন নিয়ে তৈরি হয় ‘থিওরি অফ এভরিথিং’ চলচ্চিত্র। জেন হকিংয়ের বর্ণনার ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয় চলচ্চিত্রটি। অপরদিকে ১৯৬৫ সালে জেন ওয়াইল্ডকে বিয়ে করেছিলেন হকিং। তাঁদের তিন সন্তান। ২৫ বছর পর তাঁদের বিচ্ছেদ হয়। পরে তিনি তাঁর নার্স এলাইন ম্যাসনকে বিয়ে করেন। তাঁর ৩ টি ছেলে রয়েছে যথা লুসি, রবার্ট এবং টিম । বিজ্ঞানীর মৃত্যুতে তাঁর ছেলেদের তরফে জানানো হয়, “বাবার মৃত্যুতে আমরা গভীর ভাবে শোকাহত। এক জন বিখ্যাত বিজ্ঞানী হওয়ার পাশাপাশি তিনি এক জন অসাধারণ মানুষও ছিলেন।”

প্রসঙ্গগত স্টিফেন হকিং এমন বিষয় নিয়ে গবেষণা করতেন, যা হয়তো আমজনতার পক্ষে সহজে বোধগম্য করা সম্ভব নয়। কিন্তু পদার্থবিদ্যার সেই জটিল তত্ত্বগুলিই আমজনতার কাছে সহজভাবে বুঝিয়ে দিতে পারতেন এই মানুষটি। অথচ শারীরিক প্রতিকূলতার জন্য অন্যদের সঙ্গে নিজের ভাবের আদানপ্রদান করাটাই তাঁর কাছে চ্যালেঞ্জের মতো ছিল। অথচ আরও অনেক অসাধ্যের মতো সেই অসাধ্যও সাধণ করেছিলেন স্টিফেন হকিং।

সম্ভবত সেই কারণেই গোটা বিশ্বের সাধারণ মানুষের কাছেও এতটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন তিনি। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের মতে হকিং শুধু কিংবদন্তি বিজ্ঞানী ছিলেন না, তিনি হয়ে উঠেছিলেন ‘সেলিব্রিটি বিজ্ঞানী’। ঘটনাচক্রে তাঁর জন্ম আর মৃত্যুর সঙ্গে জুড়ে রইল বিজ্ঞানের আরও দুই কিংবদন্তী পদার্থবিদের নাম। তাঁর জন্মদিন ৮ জানুয়ারি গ্যালিলিও গ্যালিলির মৃত্যুদিন। আর যে দিন মারা গেলেন হকিং, সেই ১৪ মার্চ অ্যালবার্ট আইনস্টাইনের জন্মদিন।

সম্পর্কিত সংবাদ