বাংলাদেশে নিহত ২ শিক্ষার্থীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ

Spread the love
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    5
    Shares

বেঙ্গলটুডে প্রতিনিধি, ঢাকাঃ রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপা পড়ে নিহত দুই কলেজ শিক্ষার্থীর পরিবারকে এক সপ্তাহের মধ্যে তাৎক্ষণিক ক্ষতিপূরণ বাবদ পাঁচ লাখ টাকা করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট। জাবালে নূর পরিবহন কর্তৃপক্ষকে এই ক্ষতিপূরণ পরিশোধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ক্ষতিপূরণের অর্থ নিহতদের পরিবার পেল কিনা তা নিশ্চিত করে পরবর্তী শুনানির দিন ১২ই আগস্ট প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে বিআরটিএকে। নিহত দুই শিক্ষার্থীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে ৩০শে জুলাই, সোমবার এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি খায়রুল আলমের বেঞ্চ রুল সহ এই আদেশ দেয়। রিট আবেদনটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল। রিট আবেদনে স্বরাষ্ট্র সচিব, সড়ক পরিবহন সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, ঢাকার পুলিশ কমিশনার, অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক), বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি এবং জাবালে নূর পরিবহন কর্তৃপক্ষকে বিবাদী করা হয়।

আইনজীবী কাজল গণমাধ্যমকে বলেন, মর্মান্তিক দুর্ঘটনা রোধে ট্রাফিক রুলস কঠোর ভাবে প্রয়োগের মাধ্যমে অথবা নতুনভাবে আইন প্রণয়ন করে গণপরিবহনের যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বেপরোয়া গাড়ি চালকদের নিয়ন্ত্রণ নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না এবং শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের নিহত শিক্ষার্থী আব্দুল করিম ও দিয়া খানম মিমের পরিবারকে দুই কোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত। রবিবার বিমানবন্দর সড়কের বা পাশে বাসের অপেক্ষায় থাকা শিক্ষার্থীদের জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী দিয়া আক্তার মিম ও আব্দুল করিমের মৃত্যু হয়। এছাড়া বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। দুর্ঘটনার পর রাস্তা আটকে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। ভাংচুর করা হয় বেশ কয়েকটি গাড়ি। রবিবারও বিমানবন্দর সড়ক আটকে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত খবর আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল সোমবার দুপুরে বিচারপতি জে বি এম হাসানের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে উপস্থাপন করে স্বতঃপ্রণোদিত রুল ও নির্দেশনা চাইলে আদালত তাকে বাদি হয়ে রিট আবেদন করতে বলে। একই সঙ্গে ওই দুর্ঘটনায় হতাহতদের বিষয়ে খোঁজ-খবর নিতে সংশ্লিষ্ট আদালতের সহকারি অ্যাটর্নি জেনারেল ফরিদা ইয়াসমিনকে মৌখিকভাবে নির্দেশ দেয়।

আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী হাই কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট করেন কাজল। দুর্ঘটনায় জাবালে নূর পরিবহনের দায় নির্ধারণে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) অ্যাকসিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পরিচালককে প্রধান করে আদালত তিন সদস্যের কমিটি করে দিয়েছে বলে জানান আইনজীবী কাজল। কমিটিতে ঢাকার অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) এবং বিআরটিএর চেয়ারম্যান সদস্য হিসেবে থাকবেন। তাদেরকে দুই মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। এছাড়া গণপরিবহনের চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স কোন যোগ্যতার ভিত্তিতে দেওয়া হয় এবং সড়কে চলাচলকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে সে বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে বিআরটিএকে। এই প্রতিবেদনটিও দিতে হবে আগামী ১২ অগাস্ট।

সম্পর্কিত সংবাদ